Friday, 05.24.2019, 02:13am (GMT+6)
  Home
  FAQ
  RSS
  Links
  Site Map
  Contact
 
আবদুুল হাই মাশরেকী ছিলেন মূলসংস্কৃতির শিকড়ের আধুনিক কবি ; লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে শিল্পকলায় দুদিনব্যা ; লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭ তম জন্মজয়ন্তী আগামী ১ এপ্রিল ২০১৬ ; আল মুজাহিদী ; ভাষাসৈনিক আবদুল মতিন
::| Keyword:       [Advance Search]
 
All News  
  গুণীজন সংবাদ
  বিপ্লবী
  ভাষা সৈনিক
  মুক্তিযোদ্ধা
  রাজনীতিবিদ
  কবি
  নাট্যকার
  লেখক
  ব্যাংকার
  ডাক্তার
  সংসদ সদস্য
  শিক্ষাবিদ
  আইনজীবি
  অর্থনীতিবিদ
  খেলোয়াড়
  গবেষক
  গণমাধ্যম
  সংগঠক
  অভিনেতা
  সঙ্গীত
  চিত্রশিল্পি
  কার্টুনিস্ট
  সাহিত্যকুঞ্জ
  ফটো গ্যাল্যারি
  কবিয়াল
  গুণীজন বচন
  তথ্য কর্ণার
  গুণীজন ফিড
  ফিউচার লিডার্স
  ::| Newsletter
Your Name:
Your Email:
 
 
 
সংসদ সদস্য
 
রাশেদ খান মেনন


 
 
জনাব রাশেদ খান মেনন পিতৃ কর্মস'ল ফরিদপুরে ১৯৪৩ সনের ১৮ মে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতৃভূমি বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ থানার বাহেরচর ক্ষুদ্রকাঠি গ্রাম। পিতা-মরহুম স্পীকার বিচারপতি আবদুল জব্বার খান, মাতা- সালেহা খাতুন।
১৯৫৮ সালে ঢাকা কলেজিয়েট স্কুল থেকে ম্যাট্টিকুলেশন, ১৯৬০ সালে ঢাকা কলেজ থেকে কলা বিভাগে ইন্টার মিডিয়েট ও ১৯৬৩ সনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এস, এম হল থেকে অর্থনীতিতে বি, এ, (অনার্স) ও ১৯৬৪ সালে এম, এ, পাশ করেন।
ছাত্রাবস'ায় প্রথমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংস্কৃতি সংসদের মাধ্যমে সাংস্কৃতিক আন্দোলন ও পরে আয়ুব সামরিক শাসন বিরোধী আন্দোলন ও শিক্ষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে তিনি ছাত্র আন্দোলনের নেতৃত্বে চলে আসেন এবং ঐ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে পুনরুজ্জীবিত তৎকালীন অগ্রণী বাম ছাত্র সংগঠন পূর্ব পাকিস-ান ছাত্র ইউনিয়নের প্রথম প্রচার সম্পাদক, পরে সহ-সভাপতি এই দুই দফায় সভাপতি নির্বাচিত হন। এই সময়কালে তিনি ১৯৬৩-৬৪ শিক্ষাবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন।
ছাত্রাবস'ায় ’৬২-এর সামরিক শাসন বিরোধী আন্দোলন করতে গিয়ে পূর্ব পাকিস-ান নিরাপত্তা আইনে ১৯৬২ সালে প্রথম কারাবন্দী হওয়ার পর থেকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মেয়াদে নিরাপত্তা আইন ও দেশ রক্ষা আইনে জনাব মেননকে আত্মগোপন জীবন ও কারাজীবন ভোগ করতে হয়। এ সময় ১৯৬৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন আন্দোলনকে কেন্দ্র করে তাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাঁচ বছরের জন্য বহিস্কার করা হয়। পরে সুপ্রীম কোর্টের রায়ে ঐ দণ্ডাদেশ বাতিল হলে তিনি জেল থেকে এম, এ, পরীক্ষা দেন।
১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানের মধ্যদিয়ে কারাগার থেকে মুক্তি লাভের পর রাশেদ খান মেনন মওলানা ভাসানীর নেতৃত্বাধীন কৃষক আন্দোলনে যোগদান করেন। ইতিপূর্বে ছাত্রাবস'াতেই তিনি গোপন কমিউনিস্ট দ্বন্দ্বে পার্টি বিভক্ত হলে প্রথম পূর্ব পাকিস-ানের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী-লেনিনবাদী) ও পরে নিজেরাই কমিউনিস্ট বিপ্লবীদের পূর্ববাংলা সমন্বয় কমিটি গঠন করেন। এই সময় ১৯৭০-এর ২২শে ফেব্রুয়ারি পল্টন ময়দানের জনসভায় “স্বাধীন জনগণতান্ত্রিক পূর্ববাংলা” কায়েমের দাবি উত্থানের জন্য ইয়াহিয়ার সামরিক সরকার তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ারানা জারী করলে তিনি আত্মগোপনে যান। ইয়াহিয়ার সামরিক আদালত তাকে তার অনুপসি'তিতে বিচার করে সাত বৎসর সশ্রম কারাবাস ও সম্পত্তির ষাট ভাগ বাজেয়াপ্ত করে দণ্ড প্রদান করে।
আত্মগোপনরত অবস'ায় তিনি স্বাধীন জনগণতান্ত্রিক পূর্ববাংলা প্রতিষ্ঠার জন্য সশস্ত্র কৃষক বিদ্রোহ সংগঠিত করার কাজে আত্ম নিয়োগ করেন এবং ১৯৭১ এর পঁিচশে মার্চ পল্টনের জনসভা থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা ও পাকিস-ানি সামরিক জান-ার বিরুদ্ধে সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান। ঐ রাতেই ঢাকায় অন্যান্যদের সাথে মিলে সশস্ত্র প্রতিরোধ সংগ্রাম সংগঠিত করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। স্বাধীনতা উত্তরকালে রাশেদ খান মেনন বিভক্ত কমিউনিস্ট গ্রুপগুলোকে ঐক্যবদ্ধ করার কাজে মনযোগ দেন এবং ‘মুক্তিযুদ্ধ সমন্বয়ক কমিটি’র অনর্-ভুক্ত কমিউনিস্ট গ্রুপগুলোকে ঐক্যবদ্ধ করে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (লেনিনবাদী) গঠিত হয়।
মওলানা ভাসানীর ন্যাপ-এ পার্টির একাংশে কাজ করার সিদ্ধানে-র ভিত্তিতে মেনন ন্যাপ (ভাসানী) এর  প্রচার সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এ সময় ১৯৭৩ এ ন্যাপ (ভাসানী)-র প্রার্থী হিসেবে বরিশালের দু’টি আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে একটি আসনে বিজয় লাভ করলে তাকে পরবর্তীতে পরাজিত ঘোষণা করা হয়।
১৯৭৪-এ পার্টি ভাসানী ন্যাপ থেকে বেরিয়ে এসে ইউপিপি গঠন করলে রাশেদ খান মেনন তার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। কিন' ১৯৭৮ এ ইউপিপি সামরিক শাসক জেনারেল জিয়াউর রহমানের জাতীয়তাবাদী ফ্রন্টে যোগ দিলে রাশেদ খান মেনন ইউপিপি ত্যাগ করে গণতান্ত্রিক আন্দোলন গঠন করেন এবং ১৯৭৯ সনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯১-এর পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও রাশেদ খান মেনন ওয়ার্কার্স পার্টি থেকে পুনরায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।
১৯৮২ সনে জেনারেল এরশাদ সামরিক শাসন জারী করলে রাশেদ খান মেনন সামরিক শাসন বিরোধী আন্দোলনে অন্যতম মুখ্য ভূমিকা পালন করেন। ১৯৮৩-এর ১৪ই জানুয়ারি জমিয়েতুল মুদান্নরেসিনের সভায় এরশাদ ভাষা আন্দোলন ও শহীদ মিনারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করলে মওলানা তর্কবাগীশের বাসভবনে সমস- রাজনৈতিক দলকে সমবেত করে যে ঐতিহাসিক বিবৃতি প্রদান করা হয় তার অন্যতম মুল উদ্যোগ ও ঐ বিবৃতির প্রণেতা ছিলেন রাশেদ খান মেনন। এই বিবৃতি দাতারাই পরবর্তীকালে পনের দলে ঐক্যবদ্ধ হন।
১৯৮৩-এর মধ্য ফেব্রুয়ারির ছাত্র আন্দোলনের প্রেক্ষিতে জেনারেল এরশাদ রাজনৈতিক নেতাদের গ্রেপ্তার করলে অন্যান্যদের সাথে রাশেদ খান মেননকে চোখ বেঁধে সামরিক ছাউনীর নির্জন সেলে আটকে রাখা হয়। পরবর্তীকালে জেল থেকে মুক্তি পেয়ে সামরিক শাসন বিরোধী আন্দোলনের ঐক্য বিস-ৃত করার জন্য ১৫ দল ও ৭ দলের আন্দোলনের ঐক্য বিধানের জন্য পাঁচ দফা দাবি প্রণয়নেও তিনি মুখ্য ভূমিকা রাখেন।
পনের ও সাত দলের এই যুগপৎ আন্দোলন পরিচালনায় ভূমিকার জন্য এরশাদ সামরিক শাসনামলের বিভিন্ন সময় তাকে আত্মগোপনে যেতে হয়। এই সময়কালে সম্মিলিত কৃষক সংগ্রাম পরিষদ গড়ে তুলে সংস্কারের স্বপক্ষে কৃষক আন্দোলন গড়ে তোলা এবং শ্রমিক আন্দোলনকে একত্রিত করে প্রথমে এগার ফেডারেশনের ঐক্য ও পরবর্তীতে শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ (স্কপ) গড়ে তোলার ক্ষেত্রেও তিনি ভূমিকা রাখেন। সামরিক শাসন বিরোধী আন্দোলনের এই পর্যায়ে পনের দলের একাংশ সামরিক শাসনের অধীনে নির্বাচনে অংশগ্রহণের সিদ্ধান- নিলে বিরোধী আন্দোলনের এই ওয়ার্কার্স পার্টিসহ পাঁচটি বাম দল পনের দল থেকে বেরিয়ে এসে পাঁচ দলীয় বাম জোট গঠন করেন এবং সামরিক শাসন বিরোধী আন্দোলন অব্যাহত রাখেন। এই সময়কালে ওয়ার্কার্স পার্টি ও অপর কমিউনিস্ট গ্রুপ মজদুর পার্টি ঐক্যবদ্ধ হলে রাশেদ খান মেনন এই ঐক্যবদ্ধ বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।
পাঁচদল হিসাবে সামরিক স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের ঐক্য পুনঃস'াপনে রাশেদ খান মেনন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন এবং পাঁচদল, সাত দল ও আট দলের ঐতিহাসিক ‘তিন জোটে’র ঘোষণার ভিত্তিতে ’৯০-এর গণঅভ্যুত্থানে এরশাদ স্বৈরশাহীর পতন হয়। সংসদের মাধ্যমে সংসদীয় গণতন্ত্র প্রবর্তনের জন্য সংসদের ‘বিশেষ কমিটি’ তে সংবিধানের দ্বাদশ সংশোধনী প্রণয়নে বিশেষ ভূমিকা রাখেন। রাশেদ খান মেনন সংসদের গুরুত্বপূর্ণ পাবলিক এ্যাকাউন্টস কমিটি, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়ক স'ায়ী কমিটি ও বিভিন্ন বিশেষ কমিটির সদস্য হিসাবে কাজ করেন।
১৯৯২-এর মে মাসে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ ও বাংলাদেশের সাম্যবাদী দল (এমএল) এর সাথে ঐক্যবদ্ধ হলে ঐক্য কংগ্রেস থেকে রাশেদ খান মেনন ঐ ঐক্যবদ্ধ পার্টির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এ সময় সংসদে মৌলবাদী-সামপ্রদায়িক গোষ্ঠীর তৎপরতা, সন্ত্রাস, বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফ এর কাঠামোগত সংস্কারের নিঃশর্ত অনুকরণ ও মুক্তবাজার অর্থনৈতিক নীতির বিরুদ্ধে তিনি দৃঢ় ভূমিকা গ্রহণ করেন। এই সময়ে ১৯৯২-এর ১৭ই আগস্ট অজ্ঞতনামা দুস্কৃতিকারীরা তাঁকে পার্টি কার্যালয়ের সামনে হত্যা করার উদ্দেশ্যে গুলি করে। প্রথমে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল ও পরে লন্ডনে কিংস কলেজে দু’দুবার অস্ত্রোপচার করা হলে তিনি প্রাণে বেঁচে যান।
সুস' হয়ে দেশে ফিরে রাশেদ খান মেনন পুনরায় রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে আত্মনিয়োগ করেন। এ সময় রাশেদ খান মেনন পার্টির পঞ্চম কংগ্রেসে পুনরায় পার্টির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০০ সালে পার্টির ষষ্ঠ কংগ্রেসে তিনি পার্টির সভাপতি নির্বাচিত হন এবং এখনও পর্যন- ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি পদে আছেন।
রাশেদ খান মেনন জাতীয় সাপ্তাহিক ‘নতুন কথা’র সম্পাদক মণ্ডলীর সভাপতি। তিনি বিভিন্ন পত্রিকার বহু প্রবন্ধ ও নিবন্ধ লিখেছেন এবং বর্তমানে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে কলাম লিখে বিশেষ পরিচিতি ও পাঠকপ্রিয়তা লাভ করেছেন।
ব্যক্তি জীবনে রাশেদ খান মেনন ১৯৬৯-এর মে মাসে তার ছাত্র আন্দোলনের সহকর্মী লুৎফুন্নেছা খান বিউটিকে বিয়ে করেন। লুৎফুন্নেছা খান বিউটি স্বাস'্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর পপুলেশন রিসার্চ এন্ড ট্রেনিং এর সিনিয়র ইন্সট্রাক্টর হিসেবে অবসর নিয়েছেন। তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ে।
রাশেদ খান মেনন রাজনৈতিক বিভিন্ন সভা, সম্মেলন ও সেমিনার উপলক্ষ্যে ভারত, নেপাল, গণচীন, কিউবা, উত্তর কোরিয়া, জাপান, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, আলজেরিয়া, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ইউরোপের জার্মানী, বেলজিয়াম, হল্যান্ড, লুক্সেমবার্গ, ফ্রান্স, বুলগেরিয়া ও সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ভ্রমণ করেন।
তার প্রকাশিত বই “রাশেদ খান মেননের রাজনৈতিক কলাম” ও “রাজনীতির কথকথা” “ব্রাত্যজন নয়, নায়কদের কথা”।

Comments (0)        Print        Tell friend        Top


Other Articles:
বানিজ্যমন্ত্রী মুহাম্মদ ফারুক খান
ড.ফজলে রাব্বী চৌধুরী :গাইবান্ধা-৩



 
  ::| Events
May 2019  
Su Mo Tu We Th Fr Sa
      1 2 3 4
5 6 7 8 9 10 11
12 13 14 15 16 17 18
19 20 21 22 23 24 25
26 27 28 29 30 31  
 
::| Hot News
Sheikh Hasina
বেগম খালেদা জিয়া

Online News Powered by: WebSoft
[Top Page]