Monday, 03.25.2019, 08:54pm (GMT+6)
  Home
  FAQ
  RSS
  Links
  Site Map
  Contact
 
আবদুুল হাই মাশরেকী ছিলেন মূলসংস্কৃতির শিকড়ের আধুনিক কবি ; লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে শিল্পকলায় দুদিনব্যা ; লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭ তম জন্মজয়ন্তী আগামী ১ এপ্রিল ২০১৬ ; আল মুজাহিদী ; ভাষাসৈনিক আবদুল মতিন
::| Keyword:       [Advance Search]
 
All News  
  গুণীজন সংবাদ
  বিপ্লবী
  ভাষা সৈনিক
  মুক্তিযোদ্ধা
  রাজনীতিবিদ
  কবি
  নাট্যকার
  লেখক
  ব্যাংকার
  ডাক্তার
  সংসদ সদস্য
  শিক্ষাবিদ
  আইনজীবি
  অর্থনীতিবিদ
  খেলোয়াড়
  গবেষক
  গণমাধ্যম
  সংগঠক
  অভিনেতা
  সঙ্গীত
  চিত্রশিল্পি
  কার্টুনিস্ট
  সাহিত্যকুঞ্জ
  ফটো গ্যাল্যারি
  কবিয়াল
  গুণীজন বচন
  তথ্য কর্ণার
  গুণীজন ফিড
  ফিউচার লিডার্স
  ::| Newsletter
Your Name:
Your Email:
 
 
 
লেখক
 
অধ্যাপক হরলাল রায়


 ::এই প্রোফাইলটি সাময়িকভাবে প্রদর্শন করা হলো। যে কোন ব্যাক্তি উক্ত প্রোফাইল সম্পর্কে তার মতামত দিয়ে আমাদেরকে সহযোগিতা করতে পারেন---goonijon@gmail.com

শিক্ষাবিদ, লেখক, গবেষক

(১৯৩৫-১৯৮৮)

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের গবেষক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের উপাধ্যক্ষ ও সাহিত্য একাডেমির সভাপতি অধ্যাপক হরলাল রায় ছিলেন একজন বহুমাত্রিক প্রতিভা। ১৯৮৮ সালে ৮ মার্চ এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় তাঁর মহা প্রয়ান ঘটে। কিন' আমৃত্যু তিনি ছিলেন একজন সৃজনশীল চেতনার মানুষ। নানা রকম জ্ঞান, গবেষণার সঙ্গে তিনি নিজে জড়িয়ে রেখেছিলেন। একজন আদর্শ শিক্ষক হিসেবে তাঁর খ্যাতি ছিল সারাদেশে। বন্ধু মহলে তিনি ছিলেন সদালাপী, সজ্জন, নিরহংকার ও সংকীর্ণ চিন্তা চেতনার উর্ধ্বে একজন মানুষ। তিনি তার জ্ঞান, গুন ও সৃজনশীল কর্মকান্ডের জন্য একজন প্রাতঃস্মরণীয় ব্যক্তি হিসেবে অমরত্ব লাভ করেছেন।

হরলাল রায় জন্মে ছিলেন কুমিল্লা জেলার বর্তমান দেবীদ্বার উপজেলাধীন ধামতি গ্রামে ১৯৩৫ সালের ২৯ নভেম্বর। তার পিতার নাম হৃদয়চন্দ্র রায় ও মাতার নাম মাতাঙ্গিনী দেবী। পাঁচ ভাই ও তিন বোনের মধ্যে হরলাল রায় ছিলেন দ্বিতীয়। তাঁর চার ভাই মনীন্দ্র রায়, গোপাল রায়, রাখাল রায় ও গোপাল রায় তিন বোন প্রমীলা দেবনাথ, মিলন দেবনাথ, অঞ্জলি ভৌমিক। হরলাল রায়ের দুই পুত্র ভাষণ রায়, কল্লোল রায় ও একজ কন্যা ভারতী রায়। আলোকিত কর্ম জীবনের মতো তাঁর শিক্ষা জীবন ও একটি স্মরণীয় অধ্যায়।

পাঁচ বছর বয়সে হরলাল রায়ের শিক্ষা জীবন শুরু হয় ধামতি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। সেখান থেকে দু’বছর পর তিনি গঙ্গামন্ডল রাজ ইনস্টিটিউটে ভর্তি হন। ১৯৪৫ সালে ভর্তি হন কুমিল্লার ঈশ্বর পাঠশালায়। তীক্ষ্মধী ছাত্র হিসেবে তিনি বিশেষ খ্যাত ছিলেন। ১৯৫০ খৃষ্টাব্দে তিনি ঈশ্বর পাঠশালা থেকে ১ম বিভাগে তৎকালিন এন্ট্রান্স বা ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষায় উর্ত্তীণ হন। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড তখনো প্রতিষ্ঠিত হয়নি। তৎকালিন এন্ট্রান্স বা ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতো ইন্ট বেঙ্গল সেকেন্ডারী এডুকেশন বোর্ড, ঢাকার অধীনে আর উচ্চ মাধ্যমিক ও স্নাতক শ্রেণীর পরীক্ষাগুলো ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্ভুক্ত। ১৯৫৪ খ্রীষ্ঠাব্দে তিনি কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক (আই.এস.সি) এবং ১৯৫৬ খ্রীষ্ঠাব্দে বি.এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। অতঃপর উচ্চতর শিক্ষা লাভের জন্য বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। ১৯৫৭ খ্রীষ্টাব্দে তিনি এম.এ প্রথম পর্ব পরীক্ষায় মেধানুসারে প্রথম স'ান অধিকার করেন এবং ১৯৫৮ খ্রীষ্টাব্দে দ্বিতীয় শ্রেণীতে দ্বিতীয় হয়ে এম.এ ডিগ্রি লাভ করেন। সে বছরই ১ লা সেপ্টেম্বর থেকে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে অধ্যাপনার দায়িত্ব নিয়ে চাকুরি জীবন শুরু করেন। সেখানে প্রায় এক বছর দুই মাস চাকুরির পর তিনি ১৯৫৯- এর ১লা নভেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া কলেজে যোগদান করেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া কলেজ সরকারি হবার পর ১৯৭৯-র ৭ মে সহকারি অধ্যাপক হিসেবে তাঁর পদোন্নতি হয়। ১৯৮৪-র ২৫ এপ্রিল সহযোগী হিসেবে পদোন্নতি নিয়ে তিনি সাতকানিয়া সরকারি কলেজে বদলী হন। সেখান তেকে ১৯৮৬-র ১৪ মার্চ তিনি উপাধ্যক্ষের দায়িত্ব নিয়ে পুনরায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজে ফিরে আসেন। আমৃত্যু এই দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন। মাঝখানে দীর্ঘ আট মাস তাঁকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করতে হয়।

১৯৫৯ সালের অধ্যাপক হরলাল রায় চাকুরি সূত্রে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আসেন। কালক্রমে এখানেই স'ায়ী বসতি স'াপন করেন। ১৩৬৯-এর (১৯৬২) ১৪ আষাঢ় তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পাইকপাড়াস' রমণীমোহন দেবনাথ এর কন্যা রমা রায়কে বিয়ে করেন।

শিক্ষকতা জীবনের দীর্ঘ ত্রিশ বছর কাল অধ্যাপক হরলাল রায়ের আলোকসামান্য প্রতিভা বিভিন্ন ক্ষেত্রে আত্মপ্রকাশ ও আত্মপ্রতিষ্ঠার প্রয়াস পেয়েছে। শিক্ষাবিদ, চিন্তাবিদ, সাহিত্য সমালোচক ও গবেষক এবং বহু পাঠ্যপুস্তক প্রণেতা হিসেবে তিনি বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেছেন। বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ড এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের পরীক্ষক হিসেবেও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। শিক্ষকতাকে তিনি শুরু পেশা হিসেবেই নেননি, নেশা হিসেবে নিয়েছিলেন। শিক্ষাবিস্তার এবং শিক্ষার মান উন্নয়নে নিজেকে উৎসর্গ করেছিলেন। বিভিন্ন সময়ে শিক্ষা বিষয়ক বিভিন্ন প্রশিক্ষণ নিয়েছেন, বিভিন্ন সংস'া ও প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ দিয়েছেনও। একদিকে তিনি যেমন একজন প্রশিক্ষক, অন্যদিকে তেমনি ছিলেন প্রশিক্ষণার্থীও। শিক্ষকতার আদর্শ এই দেয়া নেয়ার বিষয়টিকে তিনি পুরোপুরিভাবেই আত্মস' করেছিলেন। ১৯৮১ খ্রীষ্টাব্দে তিনি বাংলায় বি.ই.আর .আই এবং ১৯৮৬ তে নিয়েয়ার পরিচালত কলেজ প্রশাসনে সংক্ষিপ্ত প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন।

পি.এইচ.ডি করার আগ্রহ তাঁর প্রথম থেকেই ছিল। কিন' নানা কারণে সুযোগ করে উঠতে পারছিলেন না।১৯৭০-৭১ এর দিকে এ ব্যাপারে খুবই আগ্রহান্বিত হয়ে উঠেছিলেন। ডক্টর দিনেশচন্দ্র সেনের ওপর পড়াশুনা শুরু করেছিলেন। এ বিষয়ে প্রচুর বই-পত্রও সংগ্রহ করেছিলেন। কিন' একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় তাঁকে স্বপরিবারে দেশত্যাগ করতে হয়। সবকিছু ফেলে রেখে তিনি ভারতে চলে যান। সেখানে গিয়ে তিনি বৃহত্তর স্বার্থে জড়িত হয়ে পড়েন। মুক্তিযোদ্ধাদের বিভিন্ন সভা-সমাবেশে বক্তৃতা দিয়েছেন। স্বাধীনতা যুদ্ধের পক্ষে জনমত গড়ে তোলার ব্যাপারে উল্লেখযোগ্য দায়িত্ব পালন করেছেন। তৎকালিন ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে অবস'ানরত বাংলাদেশের কলেজ শিক্ষকদের নিয়ে বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতি (পূর্বাঞ্চলীয়) গঠিত হয়। হরলাল রায় ছিলেন এর সহ-সভাপতি। সভাপতি হয়েছিলেন মুজিবনগর সরকারের পূর্বাঞ্চলীয় কার্যালয়ের প্রধান, চট্টগ্রামের জহুর হোসেন চৌধুরী। আর সম্পাদক ছিলেন সরাইলের শেখ মোঃ আবু হামেদ।

যুদ্ধের পর স্বাধীন বাংলাদেশে ফেরার পূর্বে হরলাল রায় পি.এইচ.ডি করার জন্য কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে তালিকাভুক্ত হয়ে আসেন। কিন' দেশে ফিরে এসে তিনি খুবই হতাশ হন। অনেক কষ্টে জোগানো বই-প্র, আসবাবপত্র, ঘরদোর সব লুট হয়ে গেছে। এ ধাক্কা সামলাতে অনেক বেগ পেতে হয়েছিল। অনেকদিন অপেক্ষা করতে হয়েছিল নতুন উদ্যমে কাজ শুরু করার জন্য।্‌ কিন' তিনি দমলেন না। পুর্নবাসনে মনোনিবেশ করলেন। ধীরে ধীরে সবকিছু গুছিয়েও নিলেন। এরই মধ্যে কেটে গেলো দীর্ঘ সতেরটি বছর। পি.এইচ.ডি করার জন্য আবারো উৎসাহি হয়ে উঠলেন। এবার তালিকাভুক্ত হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ডক্টর মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানের তত্ত্বাবধানে দীনেশচন্দ্র সেনের ওপর থিসিস তৈরির প্রাথমিক প্রস'তি সম্পন্ন করেছিলেন। এ বিষয়ে একটি খসড়া পরিকল্পনাও অনুমোদন করিয়েছিলেন। ‘আচার্য দীনেশচন্দ্র সেন ও বাংলা সাহিত্যের সমৃদ্ধি’ শীর্ষক পরিকল্পনাটিতে দীনেশ চন্দ্র সেন সম্পর্কে গবেষণা ও গ্রন' রচনার প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে তিনি লিখেছেন, ‘বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের সমৃদ্ধির জন্য যে মনীষী আজীবন কর্ম করে গেছেন তার কাছে বাঙ্গালী জাতি চিরকৃতজ্ঞ থাকা উচিত। কিন' দুঃখের বিষয়, এই উপমহাদেশে আচার্য সেনের ওপর কোন গবেষণামূলক বা জীবন-চরিত্র গ্রন' আজ পর্যন্ত কেউ রচনা করেননি। বাঙ্গালী যে আত্মাবিস্মৃত জাতির তার আর  একবার প্রমাণ মিললো। এ লজ্জা ঢাকবার উপায় নেই। আচার্য সেনের ওপর গবেষণামূলক কাজ করার বাঙ্গালী জাতির জাতীয় কর্তব্য।’

এই অঙ্গীকার নিয়েই তিনি গবেষণা কাজ শুরু করেছিলেন। কিন' কাজটি তিনি শেষ করে যেতে পারেননি। আরও অনেক মহৎ পরিকল্পনার মতো এ কাজেও তাঁকে অতৃপ্তি নিয়েই চলে যেতে হল।


বাংলা সাহিত্যের একজন শিক্ষক, গবেষক, চিন্তক হরলাল রায়ের সমধিক খ্যাতি ছিল একজন খ্যাতিমান বৈয়াকরন হিসেবে। ব্যাকরনের নানা বিষয় নিয়ে তিনি অনেক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেছেন। বাংলা ব্যাকরনকে তিনি সহজ সরল ভাষা ও উপমায় ছাত্র-ছাত্রীদের নিকট উপস'াপন করেছেন। শতাধিক বছরের বাংলা ব্যাকরনের দুর্বোধ্যতা দূর করে তিনি একে সহজতর রূপদান করেন।

তাঁর রচি ‘উচ্চতর ব্যাকরণ ও ভাষা সেকালের সর্বাধিক পঠিত গ্রন'। ১৬৯ সালে (১৯৬৩) গ্রন'টি পুঁথিঘর  লিমিটেড, ঢাকা থেকে প্রথম প্রকাশিত হয়। গ্রন'টির বহু সংস্করণ বেরিয়েছে। এ ছাড়াও তিনি বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন শ্রেণীর পাঠ্যেপযোগী বাংলা ব্যাকরণ ও সাহিত্য বিষয়ক বহুগ্রন' রচনা করেছেন। তাঁর রচিত প্রায় প্রতিটি গ্রনে'রই একাধিক সংস্করণ রয়েছে। প্রতিটি সংস্করণেই তিনি ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য নতুন বিষয় ও আঙ্গিক যোগ করেছেন। পরিবর্তনশীল সমাজ ও শিক্ষা ব্যবস'ার প্রয়োজনেই তিনি একাজটি করেছেন। এ সম্পর্কে ‘উচ্চতর ব্যাকরণ ও ভাষা’ গ্রনে'র পূর্বভাষণে তিনি বলেছেন, ‘স'ান ও কাল ভেদে রূপান্তর হচ্ছে মানুষ ও মানুষের মন। তাই একশো বছর আগের পৃথিবী এখন নেই, আর একশো বছর পরেও আজকের পৃথিবী থাকবে না। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হয়, নতুবা’ এই পৃথিবীতে টিকে থাকা দায়।’ রূপান্তরের এ নীতিকে মেনে নিয়েই  তিনি প্রতিটি গ্রনে'র ভিন্ন ভিন্ন সংস্করণে পরিবর্তন ও পরিমার্জন করেছেন। এদিক থেকে তিনি রক্ষণশীল ছিলেন না মোটেই। সৃজনশীল ছিলেন। যে কারণে তাঁর প্রতিটি গ্রন'ই পাঠক-প্রিয়তা অর্জন করেছে। হরলাল রায় রচিত কোন না কোনো গ্রন' পাঠ করেনি এমন  ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা আজ দুর্লভ। তাঁর রচিত গ্রন'গুলোর মধ্যে ‘উচ্চতর ব্যাকরণ ও ভাষা’ ‘ব্যাকরণ ও রচনা’ , ‘বাংলা ব্যাকরণ ও রচনা,’ ‘এসো ব্যাকরণ শিখি’, ‘রচনাদর্শ’, ‘কিশোর বাংলা ব্যাকরণ ও রচনা, ছোটদের ব্যাকরণ ও রচনা, ‘দেবভাষা প্রবেশ, ’সঞ্চয়ন,’ ‘সংস্কৃত পাঠ,’ ‘বাংলা ছন্দের রূপরেখা’ ‘চর্যাগীতি’, উচ্চতর বাণিজ্যিক বাংলা, বাঙলা সাহিত্যের ইতিহাস, প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য। এসব গ্রন' স্কুল পর্যায় থেকে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে পঠিত হয়ে থাকে।

বিভিন্ন গ্রন' রচনার মাধ্যমে তিনি আমাদের পাঠ্যপুস্তক ও শিক্ষাব্যবস'ার উন্নয়নকল্পে গবেষকের ভূমিকা পালন করেছেন। প্রফেসর মনিরুজ্জামানের ভাষায়, ‘ মিশনানী উৎসাহ নিয়ে’ তিনি এ পথে নিযুক্ত ছিলেন। স্মারক গ্রনে' সংকলিত ‘হরলাল রায়ঃ প্রাসঙ্গিক কথন’ শীর্ষক রচনায় তিনি লিখেছেন, ‘আমাদের দেশে অনেকেই ব্যাকরণ রচনায় আগ্রহ দেখিয়েছিলেন, রচনা বইও লিখেছেন বড় বড় সাহিত্যিকদের অনেকেই। কিন' তাঁদের প্রচেষ্টাকে যিনি ম্লান করতে পেরেছিলেন, তিনি হরলাল রায়।” এ ব্যাপারে হরলার রায়ের কৃতিত্বের কথা উল্লেখ করে তিনি আরো লিখেছেন, ‘টেকস্ট বই রচনার কাজকে এখন বিদেশে বৈজ্ঞানিক করার চেষ্টা হচ্ছে। এ বিষয়ে বহু প্রতিষ্ঠানে গবেষণা হচ্ছে। বহু জায়গায় এ নিয়ে সেমিনার পর্যন্ত হয়েছে ও হচ্ছে। হরলাল রায় সেই সব শিক্ষা এবং ভাষা বিষয়ক গবেষকদের কথা জানতেন কিনা জানি না। কিন' তিনি একক প্রচেষ্টায় ও সাধারণ জ্ঞানে যা করে গেছেন, এখন পর্যন্ত কোন প্রতিষ্ঠানের কাছে আমরা তার বিকল্প পাইনি।”

কিন' পাঠ্য ও পাঠ্যসহায়ক গ্রন' রচনাতেই হরলাল রায় কৃতিত্ব দেখিয়েছেন তা নয়, বাংলা সাহিত্যের মৌলিক গবেষণাতেও তিনি নিজেকে নিয়োজিত করেছিলেন। এর প্রমাণ পাওয়া যায়, তার ‘চর্যাগীতি’ গ্রনে'। বাংলা সাহিত্যের আদি নিদর্শন চর্যাপদের ওপর তাঁর পর্যালোচনা গ্রন' ‘চর্যাগীতি’। এ গ্রনে' তিনি বিশেষ কৃতিত্বের পরিচয় দিয়েছেন। বইটির মূল্যায়ন প্রসঙ্গে প্রফেসর মনিরুজ্জামান লিখেছেন, ‘বইটাতে একটা সহজ আকর্ষণ আছে, ছাত্রদের অনেক প্রশ্নের সহজ সমাধান আছে, অনেক পরিশ্রম এখানে সংক্ষিপ্ত হয়ে এসেছে। পন্ডিতদের বই অনেক ছাত্রেরই বোধগম্য হয় না, হওয়ার কারণ নেই। হরলাল সেতুর কাজ করেছেন এ রকম ছাত্রদের জন্য।

এ গ্রনে'র জন্যে ১৯৬৯ সালের ‘তিতাস সাহিত্য পরিষদ’ তাঁকে ‘তিতাস সাহিত্য পুরষ্কারে’ ভূষিত করে।

শিক্ষা ও সাহিত্য গবেষণা ছাড়াও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে হরলাল রায়ের অবদান উল্লেখযোগ্য। আমৃত্যু তিনি নিজেকে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে নিয়োজিত রেখেছিলেন। তিনি ১৯৭৭ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অনুষ্ঠিত মাসব্যাপী শিল্প, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় সাহিত্য বিষয়ক পত্র-পত্রিকা প্রদর্শনের জন্য তিনি পুরষ্কৃত হন। ১৯৮৮ সালে জেলা ভিত্তিক জাতীয় গ্রন' সপ্তাহে পারিবারিক লাইব্রেরীর জন্য তিনি বিশেষ পুরষ্কার লাভ করেন।

জীবন দর্শনে অধ্যাপক হরলাল রায় ছিলেন মানবতাবাদী।

মানুষের সাথে মানুষের কোনরূপ প্রভেদ তিনি মানতেন না। ধর্মীয় মতবাদে বিশ্বাস করতেন কিন' গোঁড়ামি ছিল না। নিজে ধর্মীয় আদর্শ মেনে চলতেন, কিন' অন্যকে বাধ্য করতেন না। সকল ধর্মের প্রতিই তাঁর মিত্রভাব ছিল। সমস্ত ধর্মের মধ্যেই যে উত্তম আদর্শ আছে তার প্রশংসা করতেন। ‘যত মত তত পথ’ একথাও তিনি ততটাই বিশ্বাস করতেন যতটা মানবিক। মানুষের জন্যই ধর্ম, ধর্মের জন্য মানুষ নয়- এ বিশ্বাসে তিনি বলীয়ান ছিলেন।

অত্যন্ত ধীর-সি'র এবং শান্ত প্রকৃতির মানুষ ছিলেন তিনি। জীবনে অনেক দুঃখ দেখেছেন, কিন' দুঃখের কাছে পরাজয় মানেননি। হতাশা দেখেছেন, কিন' তা কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হয়েছেন। কঠিক জীবন দেখেছেন, কিন' সারল্য ত্যাগ করেননি। অনেক বাঁধা-বিপত্তি ও বৈরিতার সম্মূখীন হয়েছেন, কিন' মনোবল হারাননি। সবকিছুর উর্ধ্বে জ্ঞান ছিল তাঁর সাধনার বিষয়। গভীর জ্ঞান দিয়েই সবকিছুর মোকাবেলা করেছেন। নিজেই নিজেকে বড়ো মহৎ করে তুলেছিলেন তিনি।

সাহিত্য একাডেমীর সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল নিবিড়। তিনি এর সভাপতি ছিলেন আমৃত্য অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে এ দায়িত্ব পালন করেছেন। নানা ব্যস্ততার মাঝেও সাহিত্য একাডেমীর বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ও সিদ্ধান্ত সভায় উপসি'ত থেকেছেন। গঠনমূলক আলোচনা ও সমালোচনা করেছেন। একাডেমীর নীতি নির্ধারণ ও কর্মসূচী বাস্তবায়নের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। তিনি এ প্রতিষ্ঠানটিকে অত্যন্ত গভীরভাবে ভালোবেসেছেন। ভালোবেসেছেন এর সঙ্গে যাঁরা জড়িত তাঁদের সবাইকে, এর কার্যক্রমকে। সাহিত্য একাডেমীর বিভিন্ন দূর্যোগপূর্ণ মুহুর্তেও তিনি বলিষ্ঠ পদক্ষেপ নিয়ে এগিয়ে এসেছেন।

হরলাল রায়ের প্রকাশিত গ্রন'াবলী ঃ

১.  চর্যাগীতি ঃ বাংলা সাহিত্যের আদি নিদর্শন চর্যাপদের ওপর আলোচনামূলক গ্রন' (১৯৬৯)।

২.  উচ্চতর ব্যাকরণ ও ভাষা ঃ স্নাতক শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীদের সহায়ক গ্রন' (১৯৬৩)।

৩.  ব্যাকরণ ও রচনা ঃ মাধ্যমিক পর্যায়ের পাঠ্য গ্রন' (১৯৬২)।

৪.  বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস ঃ স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শ্রেণীর সহায়ক গ্রন' (১৯৬৪)।

৫.  বাংলা ছন্দের রূপরেখা ঃ স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শ্রেণীর সহায়ক গ্রন' (১৯৬৪)।

৬.  উচ্চতর বাণিজ্যিক বাংলা ঃ স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শ্রেণীর সহায়ক গ্রন' (১৯৬৪)।

৭.  সঞ্চয়ন ঃ (স্কুল পাঠ্য) বাংলাদেশ স্কুল টেকস্ট বুক বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত গ্রন' (১৯৮০)।

৮.  গল্প সঞ্চয়ন ঃ (স্কুল পাঠ্য) বাংলাদেশ স্কুল টেকস্ট বুক বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত গ্রন' (১৯৮১)।

৯.  দেবভাষা প্রবেশ ঃ (স্কুল পাঠ্য) বাংলাদেশ স্কুল টেকস্ট বুক বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত গ্রন' (১৯৮১)।

১০. সংস্কৃত পাঠম ঃ (স্কুল পাঠ্য) বাংলাদেশ স্কুল টেকস্ট বুক বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত গ্রন' (১৯৮১)।

১১. বাংলা ব্যাকরণ ও রচনা ঃ (স্কুল পাঠ্য) বাংলাদেশ স্কুল টেকস্ট বুক বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত গ্রন' (১৯৮০)।

১২. এসো ব্যাকরণ শিখি ঃ (স্কুল পাঠ্য) মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের সহায়ক গ্রন'।

১৩. রচনাদর্শ ঃ (স্কুল পাঠ্য) মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের সহায়ক গ্রন'।

১৪. কিশোর বাংলা ব্যাকরণ ও রচনা ঃ (স্কুল পাঠ্য) মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের সহায়ক গ্রন'।

১৫. ছোটদের ব্যাকরণ ও রচনা ঃ (স্কুল পাঠ্য) মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের সহায়ক গ্রন'।

 

অগ্রনি'ত কয়েকটি রচনা ঃ

১.  ঊনিশ শতকে বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস'া (প্রবন্ধ), ঢাকা, ১৯৫৬।

২.  উৎসব তাৎপর্য (প্রবন্ধ), পূরবী, আসাম, ১৯৫২।

৩.  কবি সুকান্ত (প্রবন্ধ) সাহিত্য একাডেমীর পত্রিকা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ১৯৮৪ (স্মারকগ্রনে' সংকলিত)।

৪.  রবীন্দ্রনাথ ও ধূলির ধরণী (প্রবন্ধ), ইত্তেফাক, ঢাকা ১৯৫৬।

৫.  অজিত গুহ (প্রবন্ধ) আজাদ, ঢাকা ১৯৬২।

৬.  মহাকবি হোমার (প্রবন্ধ) আজাদ, ঢাকা, ১৯৬২।

৭.  মধুসূদনের মানবতা (প্রবন্ধ) ইত্তেফাক, ঢাকা ১৯৫৮।

৮.  বাংলা সনের কথা (প্রবন্ধ) সাপ্তাহিক প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া (১৯৮১)।

৯.  মানবতার চাবি (প্রবন্ধ) সাহিত্য একাডেমী, কলকাতা (১৯৫৪)।

১০. দূরে আরো দূরে (প্রবন্ধ), প্রতিধ্বনি, বেনারস (১৯৫০)।

১১. মনের গহনে (প্রবন্ধ), প্রতিধ্বনি, বেনারস (১৯৫২)।

১২. তরঙ্গ (গল্প), প্রতিধ্বনি, বেনারস (১৯৫৬)।

১৩. জন্মান্তর (গল্প) প্রতিধ্বনি, বেনারস (১৯৬৩)।

১৪. মুক্ত কণ্ঠ (প্রবন্ধ), শতদল, ঢাকা হল বার্ষিকী (১৯৫৮)।

১৫. পরিণতি (প্রবন্ধ), দৈনিক লোকসেবক, কলকাতা (১৯৫০)।

১৬. মালবিকা (প্রবন্ধ), দৈনিক লোকসেবক, কলকাতা (১৯৫৫)।

১৭. তংকাহিকোলক (রম্যরচনা), দৈনিক লোকসেবক, কলকাতা (১৯৫৫)।

১৮. গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ (প্রবন্ধ), রবীন্দ্র স্মরণিকা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া (১৯৭২)।

১৯. রবীন্দ্রনাথের মহুয়া ও নাম্নি কবিতাগুচ্ছ (প্রবন্ধ), সমাজ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া (১৯৭২)।

২০. রবীন্দ্রনাথের বিরুদ্ধে অভিযোগ (প্রবন্ধ), ভেলা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া (১৯৭৪)।

২১. সম্পাদক নজরুল (প্রবন্ধ), স্বজন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া (১৯৮২)।

২২. মানিক বন্দোপাধ্যায় (প্রবন্ধ), সাপ্তাহিক প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া।

২৩. শাশ্বত সাহিত্য (প্রবন্ধ), সাপ্তাহিক মা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া।

২৪. সংস্কৃতি ও সাংস্কৃতিক সম্মেলন, পাক্ষিক পরিচয়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া।

২৫. একুশে ফেব্রুয়ারি ও আমাদের জাতীয় চেতনা, প্রবাহ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া।

২৬. স্বাধীনতা দিবসের ভাষা (অপ্রকাশিত), ব্রাহ্মণবাড়িয়া।

২৭. ক্ষেপা বৈশাখ (প্রবন্ধ), ব্রাহ্মণবাড়িয়া।


Comments (0)        Print        Tell friend        Top


Other Articles:
দ্বিজেন শর্মা
আহমদ ছফা
বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
মোহাম্মদ রওশন আলী
আবদুল্লাহ আল মুতী শরফুদ্দীন
জাহানারা ইমাম
মুনতাসীর মামুন
মুহম্মদ জাফর ইকবাল
মফিদুল হক
সৈয়দ আনসার মোহাম্মদ মোখতার



 
  ::| Events
March 2019  
Su Mo Tu We Th Fr Sa
          1 2
3 4 5 6 7 8 9
10 11 12 13 14 15 16
17 18 19 20 21 22 23
24 25 26 27 28 29 30
31            
 
::| Hot News
হুমায়ূন আহমেদ
অনন্য আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ
দ্বিজেন শর্মা
বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
মুহম্মদ জাফর ইকবাল

Online News Powered by: WebSoft
[Top Page]