Thursday, 10.19.2017, 05:05pm (GMT+6)
  Home
  FAQ
  RSS
  Links
  Site Map
  Contact
 
আবদুুল হাই মাশরেকী ছিলেন মূলসংস্কৃতির শিকড়ের আধুনিক কবি ; লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে শিল্পকলায় দুদিনব্যা ; লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭ তম জন্মজয়ন্তী আগামী ১ এপ্রিল ২০১৬ ; আল মুজাহিদী ; ভাষাসৈনিক আবদুল মতিন
::| Keyword:       [Advance Search]
 
All News  
  গুণীজন সংবাদ
  বিপ্লবী
  ভাষা সৈনিক
  মুক্তিযোদ্ধা
  রাজনীতিবিদ
  কবি
  নাট্যকার
  লেখক
  ব্যাংকার
  ডাক্তার
  সংসদ সদস্য
  শিক্ষাবিদ
  আইনজীবি
  অর্থনীতিবিদ
  খেলোয়াড়
  গবেষক
  গণমাধ্যম
  সংগঠক
  অভিনেতা
  সঙ্গীত
  চিত্রশিল্পি
  কার্টুনিস্ট
  সাহিত্যকুঞ্জ
  ফটো গ্যাল্যারি
  কবিয়াল
  গুণীজন বচন
  তথ্য কর্ণার
  গুণীজন ফিড
  ফিউচার লিডার্স
  ::| Newsletter
Your Name:
Your Email:
 
 
 
ভাষা সৈনিক
 
সালাম, শহীদ আব্দুস (১৯২৫-১৯৫২)



ভাষা আন্দোলনের অমর শহীদদের তালিকায় শহীদ আব্দুস সালাম ছিলেন সরকারি অফিসের পিয়ন। ভাষা আন্দোলনেরমুখপত্র সাপ্তাহিক সৈনিকের শহীদ সংখ্যা ২১ ফেব্রম্নয়ারি ১৯৫৩ থেকে এ তথ্য জানা যায়। ৮ এপ্রিল ১৯৫২ তারিখের দৈনিকআজাদের একটি সংবাদ অনুযায়ী, শহীদ সালাম ২১ ফেব্রম্নয়ারির ঘটনার সময় ঢাকা মেডিকেল কলেজের কাছে গুলবিদ্ধহন। তখন তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এখানে তিনি ৭ এপ্রিল বেলা ১১টার সময় মারা যান।অর্থাৎ গুলিবিদ্ধ হওয়ার দেড় মাস পর তিনি মারা যান। শহীদ আব্দুস সালাম ফেণী জেলার দাগন ভূঁইয়া উপজেলারলক্ষণপুর গ্রামের মো. ফাজিল মিয়ার পুত্র। তাঁর মায়ের নাম দৌলতুন্নেসা। গুলিবিদ্ধ হওয়ার আগে ঢাকার ৩৬-বি, নীলক্ষেতব্যারাকে বাস করতেন। তাঁর কবরের সন্ধান জানা যায়নি।

শহীদ আব্দুস সালামের কোনো ছবি পাওয়া যায়নি। ২০০০ সালের ২১ ফেব্রম্নয়ারিতে বর্ণনাভিত্তিক ভাস্কর রাসা তাঁর একটিকল্পিত ছবি অংকন করেন। সেটিই বর্তমানে প্রচলিত আছে।

শহীদ আব্দুস সালামের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ১৯২৫ সালের ২৭ নভেম্বর তিনি জন্মগ্রহণ করেন। ৪ ভাই ও ৩ বোনেরমধ্যে আবদুস সালাম ছিলেন জ্যৈষ্ঠ। শহীদ সালাম দাগন ভূঁইয়ার করিম উলস্নাহপুর হাইস্কুলে অস্টম শ্রেণি পর্যনত্ম লেখাপড়াকরেন। এরপর কামাল আতাতুর্ক বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণিতে ভর্তি হলেও অভাবের তাড়নায় আর লেখাপড়া করতে পারেননি।অতঃপর চাচাতো ভাই আবদুল হালিমের সহায়তায় ঢাকা চলে আসেন এবং ৮৫ নম্বর দিলকুশাস' ‘ডাইরেক্টরেট অবইন্ডাস্ট্রিজ’-এ পিয়ন পদে চাকুরি নেন। জীবনের শেষ দিন পর্যনত্ম তিনি উক্ত পদে কাজ করেছেন।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ২০০০ সালে শহীদ আবদুস সালামকে মরণোত্তর একুশে পদকে ভূষিত করেছে। ফেণীরএকমাত্র স্টেডিয়ামটি শহীদ সালামের নামে নামকরণ করা হয়েছে। তাছাড়া ফেণী মাইজদী সড়কে মাতুভূঁইয়া ব্রিজের কাছেভাষাশহীদ সালাম গেট নির্মিত হয়েছে। ফেণী জেলা পরিষদের কমিউনিটি সেন্টারও শহীদ সালামের নামে নামকরণ করাহয়। সালামের জন্মস'ান লক্ষণপুর গ্রামটি ইতোমধ্যে ‘সালাম নগর’ হিসেবে পরিচিত লাভ করেছে।


Comments (0)        Print        Tell friend        Top


Other Articles:
রফিক, শহীদ মোহাম্মদ (১৯৩২-১৯৫২)
রহমান, শহীদ সফিউর (১৯১৮-১৯৫২)
বরকত, শহীদ আবুল  (১৯২৭-১৯৫২)
জব্বার, শহীদ আব্দুল (১৯১৯-১৯৫২)
গাজীউল হক
অহিউলস্নাহ, শহীদ (জন্ম : অজ্ঞাত, মৃতু : ১৯৫২)
কাসেম, আবুল প্রিন্সিপাল (১৯২০-১৯৯১)
বাচ্চু, রওশন আরা (১৯৩২)
ইসলাম, অধ্যাপক মির্জা মাজহারুল (১৯২৭)
চৌধুরী, সাবির আহমদ (১৯২৪)



 
  ::| Events
October 2017  
Su Mo Tu We Th Fr Sa
1 2 3 4 5 6 7
8 9 10 11 12 13 14
15 16 17 18 19 20 21
22 23 24 25 26 27 28
29 30 31        
 
::| Hot News
ভাষাসৈনিক আবদুল মতিন
সালাম, শহীদ আব্দুস (১৯২৫-১৯৫২)
রফিক, শহীদ মোহাম্মদ (১৯৩২-১৯৫২)
রহমান, শহীদ সফিউর (১৯১৮-১৯৫২)
বরকত, শহীদ আবুল  (১৯২৭-১৯৫২)
জব্বার, শহীদ আব্দুল (১৯১৯-১৯৫২)
অহিউলস্নাহ, শহীদ (জন্ম : অজ্ঞাত, মৃতু : ১৯৫২)
কাসেম, আবুল প্রিন্সিপাল (১৯২০-১৯৯১)
বাচ্চু, রওশন আরা (১৯৩২)
ইসলাম, অধ্যাপক মির্জা মাজহারুল (১৯২৭)

Online News Powered by: WebSoft
[Top Page]