Monday, 05.20.2019, 03:57am (GMT+6)
  Home
  FAQ
  RSS
  Links
  Site Map
  Contact
 
আবদুুল হাই মাশরেকী ছিলেন মূলসংস্কৃতির শিকড়ের আধুনিক কবি ; লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে শিল্পকলায় দুদিনব্যা ; লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭ তম জন্মজয়ন্তী আগামী ১ এপ্রিল ২০১৬ ; আল মুজাহিদী ; ভাষাসৈনিক আবদুল মতিন
::| Keyword:       [Advance Search]
 
All News  
  গুণীজন সংবাদ
  বিপ্লবী
  ভাষা সৈনিক
  মুক্তিযোদ্ধা
  রাজনীতিবিদ
  কবি
  নাট্যকার
  লেখক
  ব্যাংকার
  ডাক্তার
  সংসদ সদস্য
  শিক্ষাবিদ
  আইনজীবি
  অর্থনীতিবিদ
  খেলোয়াড়
  গবেষক
  গণমাধ্যম
  সংগঠক
  অভিনেতা
  সঙ্গীত
  চিত্রশিল্পি
  কার্টুনিস্ট
  সাহিত্যকুঞ্জ
  ফটো গ্যাল্যারি
  কবিয়াল
  গুণীজন বচন
  তথ্য কর্ণার
  গুণীজন ফিড
  ফিউচার লিডার্স
  ::| Newsletter
Your Name:
Your Email:
 
 
 
নাট্যকার
 
সেলিম আল দীন



জন্মেছিলেন ১৯৪৯ সালের ১৮ই আগস্ট ফেনীর সোনারগাজী থানার সেনেরখিল গ্রামে৷ মফিজউদ্দিন আহমেদ ও ফিরোজা খাতুনের তৃতীয় সন্তান তিনি৷ লেখাপড়ার শুরু হয়েছিল আখাউড়ায় গৃহশিক্ষকের কাছে৷ এর কিছুদিন পর সেনেরখিল প্রাইমারি স্কুলে ভর্তি হন এবং এখানে চতুর্থ শ্রেণী পর্যন্ত পড়েন৷ তারপর মৌলভীবাজার বড়লেখার সিংহগ্রাম হাইস্কুল, কুড়িগ্রামের উলিপুরে মহারাণী স্বর্ণময়ী প্রাইমারী স্কুল এবং রংপুর ও লালমনিরহাটের স্কুলে পড়েন৷ পরে নিজ গ্রাম সেনেরখিলের মঙ্গলকান্দি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৭ম শ্রেণীতে ভর্তি হন এবং এই স্কুল থেকেই মাধ্যমিক পাশ করেন ১৯৬৪ সালে৷ ফেনী কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন ১৯৬৬ সালে৷ ১৯৬৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে ভর্তি হন৷ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে দ্বিতীয় বর্ষ পর্যন্ত পড়ার পর বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে দেন৷ টাঙ্গাইলের সাদত কলেজ থেকে স্নাতক শেষ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে এমএ ডিগ্রি করেন৷ এরপর ১৯৯৫ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন তিনি৷ আহসান হাবীব, মুনীর চৌধুরী, আহমদ শরীফ তাঁর শিল্পের পথকে চিনিয়ে দিয়েছিলেন এবং করোটিয়ায় পেয়েছিলেন কবি রফিক আজাদের সাহচর্য, যা তাঁর শিল্পযাত্রাকে আরো বেগবান করেছিল৷ এ যাত্রার মাধ্যম ছিল নাটক৷ ঝুঁকেছিলেন পাশ্চাত্য নাটকের তত্‍কালীন বেশ কয়েকজন খ্যাতিমান নাট্যকারের দিকে৷ তাঁদের মধ্যে এডওয়ার্ড এলবি যেমন ছিলেন, তেমনি ছিলেন আয়োনস্কোসহ আরো কিছু নাট্যকার৷

অ্যাবসার্ড নাটকের ধারাকেই সেলিম আল দীনের চূড়ান্ত ধারা মনে হয়েছিল কিছুদিন৷ কিন্তু নানা খটকাও ছিল৷ যে জীবন তিনি দেখেন, যে জীবন তিনি অনুভব করেন ও কল্পনা করেন, অ্যাবসার্ড নাটকের ধারায় তা খুব খাপছাড়া লাগে তাঁর কাছে৷ অসংলগ্ন বোধ হয়৷ এই চিন্তার পাশাপাশি চলছিল রেডিও-টিভিতে নাটক লেখা৷ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুহসীন হলে পেয়ে গেলেন ম. হামিদ, নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চুর মতো সতীর্থদের৷ তাঁর লেখা 'জন্ডিস ও বিবিধ বেলুন' নাটকটির নির্দেশনা দিলেন নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু৷ সেই থেকে শুরু হল সেলিম আল দীন ও নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চুর নাট্যাভিযান৷

স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় দেশ, মানুষ ও মাটি নিয়ে সেলিম আল দীনের পূর্বেকার ভাবনাগুলোতে ভাঙচুর ঘটে৷ গণহত্যা আর পাকিস্তানি ধ্বংসযজ্ঞের সামনে দাঁড়িয়ে তিনি নতুন এক আত্মপ্রত্যয় আবিষ্কার করেন৷ লেখার ভিতর দিয়ে এদেশের মাটির দাবিকে বুঝতে পারেন তিনি৷ বুঝতে পারেন, মানুষের দাবিকে তুলে আনতে পাশ্চাত্যের নাট্যাঙ্গিক নয়, নিজস্ব আঙ্গিক ও মাত্রা প্রয়োজন৷ ততদিনে লেখা হয়ে গেছে 'সর্প বিষয়ক গল্প', 'আতর আলির নীলাভ পাট', 'সংবাদ কার্টুন', 'মুনতাসির ফ্যান্টাসির'র মতো নাটকগুলো৷ এদিকে জীবিকার কথাও ভাবতে হচ্ছে৷ তাই কপি রাইটার পদে বিজ্ঞাপনী সংস্থা 'বিটপী'তে কাজ শুরু করলেন৷ একদিন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগের প্রজ্ঞাপন চোখে পড়ল ছেড়া একটা কাগজে৷ হাতে বেশি সময় ছিল না৷ বিষয়টি নিয়ে তিনি আলাপ করলেন পারুলের সঙ্গে৷ কারণ পারুলকে তিনি জীবনসঙ্গিনী করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন৷ পারুলকে বেছে নেওয়ার কারণ, তিনি হবেন লেখক৷ দরকার ধীর-স্থির ও কষ্টসহিষ্ণু একটি মেয়ে৷ যাঁর চাহিদা থাকবে কম; প্রেরণা থাকবে বেশি৷ পারুলের ভেতর সেই মেয়েটিকে খুঁজে পেয়েছিলেন তিনি৷ পারুলকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, "বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হলে কেমন হবে?" পারুল সানন্দে সায় দেন৷ ১৯৭৪ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে যোগদানের কিছুদিন পরেই বিয়ে হয় দুজনের৷ পারুলের সামনে একটাই স্বপ্ন, বিরাট বড় লেখক হবেন সেলিম আল দীন৷ তাঁর ভিতরের সৃষ্টিশীলতা আর বিরাট কিছু করার প্রত্যয় আর স্বপ্নকে চিনতে পেরেছিলেন তিনি৷

স্ত্রী পারুলের কাছ থেকে প্রেরণা পাওয়ার পাশাপাশি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস সেলিম আল দীনের শিল্প সাধনাকে ব্যাপকভাবে সহায়তা করেছে৷ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অপূর্ব নৈসর্গিক প্রকৃতি তাঁকে আকৃষ্ট করত ভীষনভাবে৷ তিনি বলতেন, "এই ক্যাম্পাসে আসার সুযোগ দেওয়ার জন্য আমি স্রষ্টার কাছে কৃতজ্ঞ"৷

প্রথাগত শিক্ষকের মতো শুধুমাত্র শ্রেণিকক্ষেই পাঠদান, পরীক্ষা, খাতা দেখা, ছাত্রছাত্রীদের মূল্যায়ন এসব নিয়েই ব্যাস্ত থাকতেন না তিনি৷ ক্লাসের বাইরেও তাঁর সৃজনশীল কাজের অংশীদার করে তুলতেন শিক্ষাথর্ীদের৷ তাদেরকে মানবসভ্যতার নানান বিন্দুকে চিনিয়ি দিতেন তিনি৷ তাদের হাতে তুলে দিতেন যার যার নিজস্ব শিল্পগৃহ খোলার চাবিকাঠি৷

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করার পর তিনি ১৯৮৬ সালে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিষ্ঠা করেন 'নাটক ও নাট্যতত্ত্ব' বিভাগ৷ একদিকে শিক্ষকতার দায়িত্ব অন্যদিকে লেখালেখি৷ একরকম টানাটানির ভেতর দিয়ে পার করতে হয়েছে অনেকটা সময়৷ টিভিতে নাটক লিখে খুব একটা আয়-রোজগার হত না প্রথম দিকে৷ আর শিক্ষকতার মাইনে তো খুবই সামান্য৷ এই আয়ের একটা অংশ দেশের বাড়িতে পাঠাতেন তিনি৷ আর ভাইবোনদের মানুষ করার মতো দায় দায়িত্বগুলো নিতে হয়েছিল তাঁকে৷ এ কাজের অনেকটাই বহন করেছিলেন পারুল নিজেও৷ পারুল তখন শিক্ষক হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুলে৷ আসত্মে আসত্মে ভাইবোন প্রত্যেককে দাঁড় করিয়ে দিতে যেটুকু সহযোগিতা প্রয়োজন, স্ত্রী পারুল তা করেছেন যথেষ্ট আন্তরিকতার সাথে৷

১৯৭৩ সালে ঢাকা থিয়েটার প্রতিষ্ঠার পর নাটক লেখার ধারা অব্যাহত রাখার পাশাপাশি কীভাবে নিজের স্বর প্রতিষ্ঠা, মাটি ও মানুষের নান্দনিক দাবিকে পূরণ করা যায়-অবিরাম সে চেষ্টা চালিয়ে গেছেন সেলিম আল দীন৷ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার ভিতরে শিক্ষক ও গবেষক হিসাবে সেই সত্তাটিকে লালন করেছেন যার সঙ্গে তাঁর সৃজনশীল সত্তার কোনো বিরোধ ছিল না৷ গবেষক হিসেবেই খুঁজে বের করলেন বাংলা নাটকের হাজার বছরের পুরনো শিল্পরীতিকে৷ যে নাট্যরীতি আমাদের একেবারেই নিজস্ব, ছোটগল্প, উপন্যাস বা প্রবন্ধের মতো পাশ্চাত্যের প্রেরণা তাড়িত বিষয় নয়৷ লঙ্গিনাসের 'অন সাবলাইম' আর পিটার ব্রুকের 'দ্য এম্পটি স্পেস'এর মতো রচনাগুলোর সঙ্গে তিনি সমন্বয় করতে চাইলেন প্রাচ্যের নান্দনিকতার৷ ভারত নাট্যশাস্ত্রের নির্যাস ও বাংলা ভাষার মধ্যযুগের সাহিত্যরীতি থেকে পাওয়া শিল্প উদ্দীপনাগুলো, এমনকি শব্দপ্রতিমাকে নতুন করে জাগিয়ে তুললেন নিজের সৃষ্টিকর্মে৷

সেলিম আল দীনকে নতুন একটি শিল্পভূমিতে দাঁড় করিয়ে দিল এই নন্দনতাত্ত্বিক চিন্তা৷ তিনি লিখলেন 'শকুনত্মলা'৷ কিন্তু তাঁর মনে হল আরও বিরাট কোন জায়গায় নাটককে নিয়ে যাওয়া যায়৷ করে তোলা যায় মহাকাব্যের সমান৷ একদিকে হোমার, ওভিদ, ভার্জিল, দানত্মে অন্যদিকে বেদব্যাস, বাল্মীকি, কালিদাসসহ ভারতীয় নন্দন শাস্ত্রকারদের রচনার মধ্য থেকে বের করতে চাইলেন মহাকাব্যিক বাসত্মবতার মাত্রা৷ লেখা হল 'কেরামতমঙ্গল', 'কিত্তনখোলা' ও 'হাত হদাই'৷

তিনি সারা জীবন চেষ্টা করেছেন কোনো পুনরাবৃত্তি যাতে না হয় এবং সেই ধারা অব্যাহত রেখেছিলেন শেষাবধি৷ 'মধ্য যুগের বাংলা নাট্য' নামের গবেষণাটি সম্পন্ন্ করার সময় তিনি কথানাট্য, পাঁচালি রীতির মতো শিল্প আঙ্গিকের চিন্তা করতে লাগলেন৷ তিনি গবেষণাটি সম্পন্ন করার আগেই লিখে ফেললেন 'চাকা', 'যৈবতী কন্যার মন' ও 'হরগজ'৷ এছাড়া দ্বৈতাদ্বৈতবাদ সেলিম আল দীনকে নতুন নাট্যধারার পথ দেখিয়ে দিয়েছিল৷ তিনি মনে করতেন, একজন লেখককে বাঁচায় তাঁর নিজস্ব সৌন্দর্যদর্শন, তাঁর নিজের এসথেটিঙ্৷ যার সঙ্গে যুক্ত করে দিতে হয় দেশীয় ঐতিহ্যের শিল্পধারনা ও প্রেরণা৷

ব্যক্তিগত ও পারিবারিক জীবনে কিছু বিষয় তাঁকে বিপর্যস্ত করে তুলেছিল৷ অস্থির ও কেন্দ্রচ্যুত করে তুলেছিল- এর চুড়ান্তে ছিল শ্যালিকার মেয়ে অন্বিতার লিউকেমিয়া ধরা পড়ার বিষয়টি৷ একমাত্র সন্তান মঈনুল হাসানের অকাল মৃত্যুর পর থেকে সেলিম আল দীন ছিলেন নিঃসন্তান৷ শিশু অন্বিতাকে ভীষণ ভালবাসতেন তিনি৷ আর নিজের সেজভাই বোরহান উদ্দীনের মেয়ে কাজরীকে সন্তানের মমতায় বড় করেছেন ৷ অন্বিতার ক্যান্সার হওয়াটাকে সহজ ভাবে নিতে পারেননি তিনি৷ ডাক্তারের কাছে রোগটির কথা শুনে চিত্‍কার করে শিশুর মতো কেঁদে একটি কথাই বারবার বলেছিলেন, 'অন্বিতার মৃত্যু আমি কিছুতেই দেখতে পারব না৷ তার আগেই যেন আমার মৃতু্য হয়৷' তাঁর সেই ইচ্ছাই পূরণ হয়েছিল৷ অন্বিতার মৃত্যুর প্রায় দেড়মাস আগেই মারা গেছেন সেলিম আল দীন৷

সেলিম আল দীনের মৃত্যু তো আসলে মৃত্যু নয়, এটা আরেক উজ্জীবনের নাম৷ তাঁর চলে যাওয়ার ভেতর দিয়ে তাঁর অস্তিত্বকেই বরং আমরা বারবার টের পাব তাঁর রচনাবলির মধ্য দিয়ে৷ নিজের গ্রন্থ প্রকাশ নিয়ে তিনি কোনো দিন ব্যস্ত ছিলেন না৷ তাঁর কিছু ভক্ত আর কিছু শুভানুধ্যায়ী বিভিন্ন সময়ে তাঁর বিভিন্ন বই প্রকাশ করার ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন৷ এছড়া বাংলা একাডেমী তাঁর কয়েকটি বই প্রকাশ করে৷

বছরের পর বছর নিমগ্ন থাকতেন কোন একটা চিন্তার পেছনে৷ কিন্তু সেটা শেষাবধি আর হয়ে উঠত না৷ আবার এক ঝলকে পেয়ে যেতেন কোনো কাহিনীর রূপরেখা৷ বিশেষ করে টিভি নাটকের অসংখ্য কাহিনী তাঁর মনে বিদ্যুতের ঝলকের মতো রেখাপাত করত৷

তারুণ্যের শেষ দিক থেকেই উচ্চ রক্তচাপ এবং হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি৷ রাতে উচ্চ রক্তচাপ রোধ করার ওষুধ খেয়ে ঘুমাতে যেতেন, কিন্তু অনেক সময়ই ঘুম হত না৷ বিশেষ করে লেখায় পেয়ে বসলে অসুখ-বিসুখ, নিয়ম-কানুন সব ভুলে যেতেন তিনি৷

বিভিন্ন উত্‍সব আয়োজন যা কিছু জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে হত তা তাঁকে বাদ দিয়ে ভাবা যেত না৷ বিভিন্ন উত্‍সবের মূল বাণী ঠিক করে দেওয়া, অনুষ্ঠানের মেজাজ অনুযায়ী গান তৈরি করে দেওয়া সবই করতেন তিনি৷ গান লিখতেন আশির দশকের মাঝমাঝি সময় থেকে৷ নাটকের গান তো ছিলই৷ পাশাপাশি আরও অনেক গান লিখেছিলেন৷ তিনি গানকে বলতেন, কথাসুর৷ ১৯৯৯ সালের শেষের দিকে কয়েকজনকে নিয়ে গড়ে তুলেছিলেন ছোট্ট একটা গানের দল৷ নাম দিয়েছিলেন, 'কহনকথা'৷

বেশ কিছু গান তিনি ও তাঁর গানের দল 'কহনকথা'র শিল্পীরা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পরিবেশন করেছিলেন৷ 'কহনকথা'র শিল্পীদের মধ্যে ছিলেন সাবেরা তাবাসসুম, সাকিরা পারভীন সুমা, সঙ্গীতা চৌধুরী, কাজী শুসমিন আফসানা, আবদুল্লাহ আল মামুন ও শশী৷

সেলিম আল দীন প্রেরণা পেয়েছেন হোমার, ফেরদৌসী, গ্যেটে আর রবীন্দ্রনাথের মতো কবিদের কাছ থেকে৷ তাঁদের কাছ থেকে বারবার ফিরে গেছেন একান্ত বাধ্যগত শিষ্যের মতো৷ আবার তাঁদেরকে গুরু মেনে তাঁদেরকে পেরিয়ে যাওয়ার একটা চেষ্টা দিনরাত মনের ভেতরে লালন করতেন তিনি৷ কিন্তু তিনি এটাও জানতেন তাঁর সেই আশা কোন দিন পূরণ হওয়ার নয়৷ শেষদিকে লেখা তাঁর দিনপঞ্জির অসংখ্য পাতায় এর প্রমাণ আছে৷ সেলিম আল দীন যেসব কাজ করেছেন সেগুলির মূলে আছে পাশ্চাত্য শিল্পধারাকে চ্যালেঞ্জ করা এবং এর মুখোমুখি দাঁড়িয়ে নিজস্ব শিল্প সৃষ্টি করে তা অনুশীলন করা৷ পাশাপাশি পরবর্তী প্রজন্মের লেখক, কবি, শিল্পী ও নাট্যকর্মীদের এই বোধে উজ্জীবিত করা যে আমাদের শিল্প ঐতিহ্য নিয়েই আমরা তৈরি করতে পারি আমাদের নিজস্ব শিল্পজগত৷ পরের অনুকরণ করে কখনও নিজস্বতা অর্জন করা যায় না৷ খুব জোরের সঙ্গে বারবার বলেছেন, 'অন্যের বসন কখনও নিজের হয় না৷ হয় না সেটা নিজের ভূষণ৷'

শিল্প বিষয়ে জ্ঞান অর্জন, নিজের শিল্পবিশ্বাস নির্মাণ করে তা অনুশীলন ও পরবর্তী প্রজন্মকে সেই শিল্প ধারণায় অবগাহনের প্রেরণা আমৃতু্য সঞ্চার করেন যিনি তিনিই তো একজন আচার্য হয়ে ওঠেন৷ সেই অর্থে সেলিম আল দীনের অবস্থান আমাদের সাহিত্যক্ষেত্রে একজন আচার্যের মতোই৷ তাঁর মৃতু্যর মধ্য দিয়ে যে দায়িত্ব তিনি পরবর্তী প্রজন্মের কাছে অর্পন করে গেছেন, তা তাদেরকে অবিরাম প্রেরণা দিয়ে যাবে৷

সংক্ষিপ্ত জীবনপঞ্জি

জন্ম ও শৈশব
নাট্যকার সেলিম আল দীন জন্মেছিলেন ১৯৪৯ সালের ১৮ই আগস্ট ফেনীর সোনাগাজী থানার সেনেরখিল গ্রামে৷ মফিজউদ্দিন আহমেদ ও ফিরোজা খাতুনের তৃতীয় সনত্মান তিনি৷ শৈশব ও কৈশোর কেটেছে ফেনী, চট্টগ্রাম, সিলেট, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও রংপুরের বিভিন্ন স্থানে৷ বাবার চাকরির সূত্রে এসব জায়গার বিভিন্ন স্কুলে পড়াশোনা করেছেন তিনি৷

শিক্ষা
সেলিম আল দীন ১৯৬৪ সালে ফেনীর সেনেরখিলের মঙ্গলকান্দি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করেন৷ ১৯৬৬ সালে ফেনী কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন৷ ১৯৬৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে ভর্তি হন৷ দ্বিতীয় বর্ষে পড়ার সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে গিয়ে ভর্তি হন টাঙ্গাইলের করোটিয়ায় সাদত কলেজে৷ সেখান থেকে স্নাতক পাসের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ থেকে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন৷ ১৯৯৫ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন সেলিম আল দীন৷

পেশা
বিজ্ঞাপনী সংস্থা বিটপীতে কপি রাইটার হিসেবে চাকরি জীবন শুরু করলেও পরে সারাজীবন শিক্ষকতাই করেছেন৷ ১৯৭৪ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন এবং আমৃত্যু এই বিশ্ববিদ্যালয়েই ছিলেন তিনি৷ এই বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ছিলেন তিনি৷

রচিত গ্রন্থ
প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ 'সর্প বিষয়ক গল্প ও অন্যান্য নাটক' (১৯৭৩)৷ তাঁর উল্লেখযোগ্য নাটক-গ্রন্থ: 'জন্ডিস ও বিবিধ বেলুন' (১৯৭৫), 'বাসন' (১৯৮৫) 'মুনতাসির', 'শকুনত্মলা', 'কিত্তনখোলা' (১৯৮৬), 'কেরামতমঙ্গল' (১৯৮৮), 'যৈবতী কন্যার মন' (১৯৯৩), 'চাকা' (১৯৯১), 'হরগজ' (১৯৯২), 'প্রাচ্য' (২০০০), 'হাতহদাই' (১৯৯৭), 'নিমজ্জন' (২০০২), 'ধাবমান', 'স্বর্ণবোয়াল' (২০০৭), 'পুত্র', 'স্বপ্ন রজনীগণ' ও 'ঊষা উত্‍সব'৷ রেডিও টেলিভিশনে প্রযোজিত নাটক: 'বিপরীত তমসায়' (রেডিও পাকিস্তান, ১৯৬৯), 'ঘুম নেই' (পাকিস্তান টেলিভিশন, ১৯৭০), 'রক্তের আঙ্গুরলতা' (রেডিও বাংলাদেশ ও বিটিভি), 'অশ্রুত গান্ধার' (বিটিভি, ১৯৭৫), 'শেকড় কাঁদে জলকণার জন্য' (বিটিভি ১৯৭৭), 'ভাঙনের শব্দ শুনি' (আয়না সিরিজ, বিটিভি ১৯৮২-৮৩), 'গ্রন্থিকগণ কহে' (বিটিভি ১৯৯০-৯১), 'ছায়া শিকারী' (বিটিভি ১৯৯৪-৯৫), 'রঙের মানুষ' (এনটিভি ২০০০-২০০৩), 'নকশীপাড়ের মানুষেরা' (এনটিভি, ২০০০), 'কীত্তনখোলা' (আকাশবাণী কোলকাতা, ১৯৮৫)৷

গবেষণাধর্মী নির্দেশনা: 'মহুয়া' (ময়মনসিংহ গীতিকা অবলম্বনে, ১৯৯০), 'দেওয়ানা মদিনা' (ময়মনসিংহ গীতিকা অবলম্বনে, ১৯৯২), 'একটি মারমা রূপকথা' (১৯৯৩), 'কাঁদো নদী কাঁদো', 'মেঘনাদ বধ' (অভিষেক নামপর্ব)৷ অন্যান্য: 'চাকা' নাটক থেকে চলচ্চিত্র নির্মিত হয় ১৯৯৪, 'কীত্তনখোলা' নাটক থেকে চলচ্চিত্র নির্মিত হয় ২০০০ সালে৷ 'একাত্তরের যীশু' চলচ্চিত্রের সংলাপ রচনা করেন ১৯৯৪ সালে৷

জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পুরস্কার ও সম্মাননা
বাংলা একাডেমী সাহিত্য পুরস্কার, ১৯৮৪; ঋষিজ কর্তৃক প্রদত্ত সংবর্ধনা, ১৯৮৫; কথক সাহিত্য পুরস্কার, ১৩৯০ বঙ্গাব্দ; একুশে পদক, ২০০৭; জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, ১৯৯৩; অন্য থিয়েটার (কলকাতা কর্তৃক প্রদত্ত সংবর্ধনা); নান্দিকার পুরস্কার (আকাদেমি মঞ্চ কলকাতা) ১৯৯৪; শ্রেষ্ঠ টেলিভিশন নাট্যকার, ১৯৯৪; খালেকদাদ সাহিত্য পুরস্কার; জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (একাত্তরের যীশু, শ্রেষ্ঠ সংলাপ) ১৯৯৪; মুনীর চৌধুরী সম্মাননা, ২০০৫৷

তথ্যসুত্র: থিয়েটারওয়ালা, থিয়েটার, থিয়েটার স্টাডিস, ভোরের কাগজ, যুগান্তর, লেখকের স্ত্রী বেগমজাদী মেহেরুন্নেসা সেলিম ও তাঁর ছাত্র৷


Comments (0)        Print        Tell friend        Top


Other Articles:
সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্



 
  ::| Events
May 2019  
Su Mo Tu We Th Fr Sa
      1 2 3 4
5 6 7 8 9 10 11
12 13 14 15 16 17 18
19 20 21 22 23 24 25
26 27 28 29 30 31  
 
::| Hot News
সাঈদ আহমদ
সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্

Online News Powered by: WebSoft
[Top Page]