Monday, 05.20.2019, 03:58am (GMT+6)
  Home
  FAQ
  RSS
  Links
  Site Map
  Contact
 
আবদুুল হাই মাশরেকী ছিলেন মূলসংস্কৃতির শিকড়ের আধুনিক কবি ; লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে শিল্পকলায় দুদিনব্যা ; লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭ তম জন্মজয়ন্তী আগামী ১ এপ্রিল ২০১৬ ; আল মুজাহিদী ; ভাষাসৈনিক আবদুল মতিন
::| Keyword:       [Advance Search]
 
All News  
  গুণীজন সংবাদ
  বিপ্লবী
  ভাষা সৈনিক
  মুক্তিযোদ্ধা
  রাজনীতিবিদ
  কবি
  নাট্যকার
  লেখক
  ব্যাংকার
  ডাক্তার
  সংসদ সদস্য
  শিক্ষাবিদ
  আইনজীবি
  অর্থনীতিবিদ
  খেলোয়াড়
  গবেষক
  গণমাধ্যম
  সংগঠক
  অভিনেতা
  সঙ্গীত
  চিত্রশিল্পি
  কার্টুনিস্ট
  সাহিত্যকুঞ্জ
  ফটো গ্যাল্যারি
  কবিয়াল
  গুণীজন বচন
  তথ্য কর্ণার
  গুণীজন ফিড
  ফিউচার লিডার্স
  ::| Newsletter
Your Name:
Your Email:
 
 
 
গুণীজন সংবাদ
 
ভাষাশহীদ সুদেষ্ণা সিংহ




আজ ১৬ই মার্চ। ১৯৯৬ সালের এই দিনে মাতৃভাষার জন্য জীবন দিয়েছিলেন ভাষাশহীদ সুদেষ্ণা সিংহ। পৃথিবীর ইতিহাসে কেবল দু'টি ভাষার জন্যই জনগণকে লড়াই করতে হয়েছে, বুকের রক্ত ঝরাতে হয়েছে - ভাষা দু'টি হলো বাংলা এবং বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি । তামিল ও কন্নাড়া ভাষাকে প্রাদেশিক ভাষা করার দাবীতেও আন্দোলন হয়েছে, তবে কেবল বাংলা ও বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষার আন্দোলন পুরোপুরিভাবে জাতিগত অস্তিত্তের সাথে সম্পর্কিত ছিল। বাংলার মতোই বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরিদেরকে তাদের মাতৃভাষার স্বীকৃতির জন্য কঠিন সংগ্রাম করতে হয়েছে। সেই সংগ্রামে অনেক রক্ত ও প্রাণ ঝরেছে এবং সে সংগ্রাম ছিল বাংলা ভাষা আন্দোলনের চেয়েও দীর্ঘতর। মাতৃভাষার সাংবিধানিক স্বীকৃতি ও মাতৃভাষায় শিক্ষার দাবীতে ভারতের আসাম ও ত্রিপুরা রাজ্যে গত শতকের পঞ্চাশের দশক থেকে প্রায় অর্ধশত বছর ধরে সংঘটিত হয়েছে এক রক্তক্ষয়ী আন্দোলন। সেই আন্দোলনের চরম পর্যায়ে পুলিশের গুলিতে আত্মাহুতি দিয়েছিল সুদেষ্ণা সিংহ নামের এই বিদ্রোহী তরুণী।

সুদেষ্ণা সিংহ মৃত্যূ দিয়ে একটি ভাষাকে বাঁচিয়ে দিয়েছেন তার মৃত্যূদশা থেকে। তাই ১৬ই মার্চ পৃথিবীর ভাষার ইতিহাসে এবং বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি জাতির ইতিহাসে সবচেয়ে গুরুত্তপূর্ণ দিন। আসাম এবং ত্রিপুরা সরকার দিনটিকে 'ভাষা দিবস' হিসাবে ঘোষনা করেছে। বাংলাদেশ, ভারত, বার্মাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরিরা সুদেষ্ণা এবং তার আত্মত্যাগের কথা পরম শ্রদ্ধার সাথে স্মরন করে থাকে। সুদেষ্ণার ভাষা ও জাতিচেতনাকে কৃতজ্ঞতা জানাতে বাংলাদেশের সিলেট মৌলবীবাজার হবিগন্জ সুনামগন্জে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরিরা গভীর মমতা ও ভালবাসায় পালন করেন শহীদ সুদেষ্ণা দিবস। পৃথিবীর সমস্ত অবহেলিত, নিপীড়িত ও ক্ষুদ্র জাতিসত্তাদের পক্ষ থেকে আজ শহীদ সুদেষ্ণার জন্য শ্রদ্ধা ও ভালবাসা।

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী বাংলাদেশের প্রায় ষাট হাজার মানুষের মাতৃভাষা। এ ভাষায় যারা কথা বলে তাদের কাছে ভাষাটি ‘ইমার ঠার’ নামে পরিচিত যার অর্থ হলো ‘আমার মায়ের ভাষা’। বাংলাদেশের মৌলবীবাজার, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ এবং সিলেট জেলার বিভিন্ন জায়গায় বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী জনগোষ্ঠির মানুষ বাস করে। ভাষাটি উত্তরপূর্ব ভারতের মণিপুর রাজ্যে সৃস্ট এবং এর ব্যাকরন বিশেষ করে ধ্বনিতত্ত ও শব্দকোষ মণিপুরী মৈতৈ ভাষা দ্বারা প্রভাবিত। এ ভাষার দুটি উপভাষা রয়েছে - রাজারগাঙ এবং মাদইগাঙ। বাংলাদেশে মাদইগাঙ ভাষাভাষীর সংখ্যা তুলনামুলকভাবে বেশী।

ভারতের উত্তর পূবাঞ্চলীয় রাজ্য আসামের দুটি প্রধান উপত্যকা, একটি ব্রহ্মপুত্র অপরটি বরাক। পার্বত্য কাছাড়, কাছাড়, হাইলাকান্দি, করিমগঞ্জ এই চারটি জেলা নিয়েই আসামের বরাক উপত্যকা। আর এই বরাক উপত্যকার নীচেই বাংলাদেশের সুরমা উপত্যকা। উভয় উপত্যকার এক নির্ভীক প্রান্তিক জাতি বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী। ভারতে আসাম রাজ্যের কাছাড়, পাথারকান্দি, হাইলাকান্দি, করিমগঞ্জ , ত্রিপুরা রাজ্য এবং মণিপুরে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীদের সংখ্যাধিক্য। বাংলাদেশে মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জেই বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীদের অধিক বসতি দেখা যায়, মৌলভীবাজার, সিলেট, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ ছাড়াও দেশের অনেক জায়গাতেই নানান প্রয়োজনে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী জনগণ নিজেদের ঐতিহাসিক আবাস গড়ে তুলেছেন। বাংলাদেশে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী এবং মৈতৈ মণিপুরী ( মৈতৈদের ভেতর যারা ইসলাম ধর্ম পালন করেন তাদেরকে পাঙন/পাঙান বলা হচ্ছে) এই দুই ভিন্ন জাতিকে বরাবর রাষ্ট্রীয় নথিপত্র ও দলিল দস্তাবেজে ‘মণিপুরী’ হিসেবে দেখানো হয়। ভারতের মণিপুরসহ উভয় উপত্যকায় বরাবর একটি আন্ত:জাতিগত দ্বন্দ্ব আছে কে মণিপুরী আর কে মণিপুরী নয় তা নিয়ে। উভয় রাষ্ট্রের উভয় উপত্যকার রাষ্ট্রীয় কার্যক্রম বরাবর এই আন্তঃজাতিগত দ্বন্দ্ব থেকে নানান ফায়সালা নিতে চায়। আর তা হচ্ছে কৌশলে ভাষিক সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর ভাষা ও জাতিগত অস্তিত্বকে সাংবিধানিক স্বীকৃতি ও সমমর্যাদা না দেয়া।

মাতৃভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে সুদেষ্ণার আত্মত্যাগের কথা
আসামের বিলবাড়ী নামের একটি প্রত্যন্ত প্রামে ১৯৬৪ সালে সুদেষ্ণা সিংহের জন্ম। মা বাবা আদর করে নাম রেখেছিল বুলু। ছোটবেলা থেকেই স্কুলে বিজাতীয় ভাষায় শিক্ষাগ্রহনের যথার্থতা নিয়ে মা বাবাকে অসংখ্য প্রশ্নবাণে জর্জরিত করে তুলতো। বড় হয়ে সম্পৃক্ত হলেন মাতৃভাষা স্বীকৃতির আন্দোলনের সাথে। আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ভাষাবিপ্লবীরা বরাক উপত্যকায় ১৯৯৬ সালের মার্চ মাসে ৫০১ ঘন্টার রেল অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। কর্মসূচীতে যোগ দেবার আগে সহচরী প্রমোদিনীকে দ্বিধাহীন জানিয়ে যান - "মোর রকতলো অইলেউ মি আজি ইমারঠারহান আনতৌগাগো চেইস!" (আমার রক্ত দিয়ে হলেও আজ আমি মাতৃভাষাকে কেড়ে আনবো দেখিস)। ১৬ই মার্চ, শনিবার বেলা ১২টা ১০ মিনিটে করিমগন্জ থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহি ট্রেনটি যখন কলকলিঘাটের গুংগাঝরি স্টেশন পেরিয়ে যাচ্ছিল সে সময় সত্যাগ্রহীরা ট্রেনটিকে শান্তিপুর্ণভাবে থামালো। কিন্তু বাধ সাধল রাস্ট্রের নিয়োজিত পুলিশ। তারা প্রায় বিনা উস্কানিতে গুলিবর্ষন শুরু করলো, সেখানে তাদের নির্দেশ দেবার জন্য ছিলনা কোন ম্যাজিষ্ট্রেট বা অফিসার। এর আগে পুলিশ কোন ফাকাঁ আওয়াজও করেনি। ঘটনার বিহ্বলতায় ছত্রভঙ্গ হওয়ার আগেই সত্যাগ্রহীরা আবিষ্কার করলেন বুকে গুলি খেয়ে মৃত্যূর কোলে ঢলে পড়েছেন বুলু। তার সাথে মারাত্মকভাবে আহত হয়ে কাতরাচ্ছেন অরুন সিংহ(২৬), প্রমোদিনী সিংহ (২৫), কমলাকান্ত সিংহ (৪৫), দীপংকর সিংহ (২৫), প্রতাপ সিংহ(২৬), নমিতা সিংহ(৪০), রত্না সিংহ(২৪), বিকাশ সিংহ(২৭), শ্যামল সিংহ(২০) সহ অসংখ্য সত্যাগ্রহী। এ অবষ্থার মধ্যে পুলিশ ব্যাপক ধরপাকড় করে, গ্রেফতার হন শতাধিক ভাষাবিপ্লবী।

পৃথিবীর ইতিহাসে এ যাবত দু’জন নারী ভাষার লড়াইয়ে প্রাণ দিয়েছেন। কমলা ভট্টাচার্য আসামের বাংলাভাষা আন্দোলনে শহীদ হন এবং সুদেষ্ণা সিংহ শহীদ হয়েছেন বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষা আন্দোলনের জন্য। পৃথিবীর অবহেলিত ও সংখ্যায় ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠিগুলোর মধ্যে ভাষাশহীদ যিনি মাতৃভাষা স্বীকৃতির আন্দোলনে জীবন উৎসর্গ করেছেন। আসামের বরাক উপত্যকায় বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরিদের দীর্ঘ ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসে ১৬ই মার্চ একটি রক্তক্ষয়ী দিন। সুদেষ্ণার আত্মত্যাগের কারণেই জন্যই মাতৃভাষার আন্দোলন আরো বেগবান হয় এবং একপর্যায়ে সহজ সরল মানুষগুলোর ভাষার দাবীকে মেনে নিতে বাধ্য হয় রাস্ট্র।

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি জনগোষ্ঠী এবং মাতৃভাষার জন্য তাদের লড়াই
বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি নামে পরিচিত ভাষিক সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠির আদিভূমি হলো ভারতের উত্তর পুর্বাঞ্চলের মণিপুর নামের একটি রাজ্য। অষ্টাদশ শতাব্দীর প্রথম ভাগ থেকে নানান রাজনৈতিক এবং সম্প্রদায়গত সংঘর্ষের কারণে এবং বিশেষ করে ১৮১৯-১৮২৫ সনে সংঘটিত বার্মা-মণিপুর যুদ্ধের সময় ব্যাপক সংখ্যক মণিপুরির অভিবাসন ঘটে পার্শ্ববর্তী রাজ্য আসামের কাছাড়, ত্রিপুরা এবং বাংলাদেশে। অভিবাসী মণিপুরিদের মধ্যে বলতে গেলে সবাই মৈতৈ, বিষ্ণুপ্রিয়া এবং পাঙন(মণিপুরি মুসলিম) সম্প্রদায়ের বিষ্ণুপ্রিয়াদের ভাষার নাম বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি এবং মৈতৈদের ভাষা মৈতৈ বা মীতৈ। মণিপুরে প্রায় ত্রিশটিরও বেশী বৈচিত্রময় জাতির মানুষের বাস হলেও সেখানে মৈতৈরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ। মৈতৈ ভাষা সেখানে লিঙগুয়া ফ্রাংকা। ইমফাল, বিষ্ণুপুর ও নিংথৌখঙের বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি যারা ছিল তারা প্রায় সবাই মৈতৈ ভাষা গ্রহন করার ফলে মণিপুরে বিষ্ণুপ্রিয়া ভাষা প্রায় বিলুপ্তির পথে। তবে ভারতের সাম্প্রতিক সেন্সাস থেকে মণিপুরের জিরিবাম অঞ্চলে কয়েক হাজার বিষ্ণুপ্রিয়ার পরিসংখ্যান পাওয়া যায়।

ভারতের মণিপুরসহ বরাক ও ব্রহ্মপুত্র উপত্যকায় বরাবর একটি আন্ত:জাতিগত দ্বন্দ্ব আছে কে মণিপুরি আর কে মণিপুরি নয় তা নিয়ে। ভারতের মণিপুর অঞ্চলেই বিষ্ণুপ্রিয়া বা মৈতৈ পরিচিতির বা ভাষার উদ্ভব। যদিও বিষ্ণুপ্রিয়া এবং মৈতৈ এই দুইটি জাতিকে বরাবর রাষ্ট্রীয় নথিপত্র ও দলিল দস্তাবেজে ‘মণিপুরি’ হিসেবে দেখানো হয়। ভারতের ভাষানীতির ভিত্তি স্যার জর্জ গ্রিয়ারসনের ‘লিংগুস্টিক সার্ভে অব ইন্ডিয়া’ গ্রন্থে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরিদের স্পস্টভাবে ‘বিষ্ণুপুরীয়া মণিপুরি’ হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। তার পরেও এসব অঞ্চলগুলোর রাষ্ট্রীয় কার্যক্রম বরাবর এই আন্তঃজাতিগত দ্বন্দ্ব থেকে নানান ফায়দা নিতে চায়। আর তা হচ্ছে কৌশলে ভাষিক সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর ভাষা ও জাতিগত অস্তিত্বকে সাংবিধানিক স্বীকৃতি ও সমমর্যাদা না দেয়া।

মাতৃভাষার আন্দোলন আর সেন্সাসের সহায়তায় রাস্ট্রের প্রতারনা
আসাম ও ত্রিপুরায় বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষার স্বীকৃতির আন্দোলন দানা বাঁধে ১৯৫০ সন থেকে। ১৯৫৫ সনে মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষা চালুর দাবীর দাবীতে 'নিখিল বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি মহাসভা'র উদ্যোগে ভাষা পরিষদ গঠিত হয় এবং ভাষার অধিকারের দাবীতে আন্দোলন শুরু হয়। ভাষিক সংখ্যালঘু বিষয়ক কমিশনসহ নানান রাষ্ট্রীয় প্রশাসনের সঙ্গে পত্র ও স্মারকলিপিসহ নিয়মতান্ত্রিক মাধ্যমে বারবার বৈঠক হয় বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি নেতৃবৃন্দের, পরবর্তীতে তা ব্যাপক গনআন্দোলনের রূপ নেয়। কিন্তু সরকারের ঔদাসীন্য, ছলচাতুরী ও নেতিবাচক প্রতিক্রিয়ার কারণে দুটি রাজ্যেই প্রাণের দাবী মুখ থুবড়ে পড়ে বারংবার। জনগনের নায্য দাবীকে ব্যর্থ করতে ভারত সরকার সেন্সাস রিপোর্টের গণনায় প্রতারনার আশ্রয় নেয়।

ক. ভারতের ১৯৫১ সনের সেন্সাস রিপোর্ট অনুযায়ী সমগ্র ভারতে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি জনসংখ্যা হলো ১১৪ জন (মণিপুর রাজ্য), অথচ এর ৬০ বছর আগে ১৮৯১ সনে স্যার জি.এ. গ্রীয়ার্সন মণিপুর রাজ্য এবং সিলেট জেলায় প্রায় ২৩,০০০ বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরির অস্তিত্বের কথা উল্লেখ করেছিলেন।

খ. ১৯৬১ সনের ভারতীয় সেন্সাসে আসাম রাজ্যের বরাক উপত্যকার করিমগঞ্জের পাথারকান্দিতে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরিদের জনসংখ্যা মাত্র ১ জন নারী দেখানো হয়, অথচ সেখানে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরিদের জনসংখ্যা ছিল ২২,০০০ এরও বেশী। ত্রিপুরায় কমপক্ষে ২০,০০০ বিষ্ণু্প্রিয়া মণিপুরির বিপরীতে গননা করা হয় মাত্র ১৩ জন পুরুষ। আর বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরিদের ঘনবসতিপুর্ণ অঞ্চল কাছাড়ের প্রায় ৬৬,০০০ এর জায়গায় লেখা ১৫,১৫৫ জন।

গ. ১৯৭১ সালে পাথারকান্দির জনসংখ্যা দেখানো হয়েছে ১০,১৬৪ জন। অর্থাৎ ১ জন নারী ১০ বছরে কোন পুরুষের সহায়তা ছাড়াই ১০,১৬৪ জন্মদান করেছে! আবার ১৯৬১ সনের নারীশূন্য ত্রিপুরায় ১৩ জন পুরুষ ১০ বছরে জন্ম দিয়েছে ৯৮৮৪ জনের!
রাষ্ট্রের এইসব উদ্ভট ও হাস্যকর জনপরিসংখ্যানিক দলিল থেকে আমরা ধারণা করতে পারি প্রান্তিক জাতি বিষয়ে রাষ্ট্র কি ধরনের মনোযোগ ও উদ্যোগ বহাল রাখে।

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষা আন্দোলনের সংক্ষিপ্ত ঘটনাপঞ্জী (১৯৫৫-১৯৯৬)
সত্যাগ্রহ আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ১৯৬১ সালের ২ জুলাই ভাষা পরিষদ ভাষা দাবী দিবস পালন করে। ১৯৬৫ সালের ২-৮ জুলাই ভাষা দাবী সপ্তাহ পালন করা হয়। ১৯৬৭ সালের ২ জুলাই দাবী সপ্তাহ ১২ দিন দীর্ঘায়িত করা হয় এবং কাছাড় জেলার সর্বত্র পাবলিক সভা সমাবেশ করা হয়, এইসব সভায় সেন্সাসের জালিয়াতির বিরুদ্ধে জোরদার বক্তব্য রাখা হয়। ১৯৬৮ সালের মে মাস থেকেই স্কুল, কলেজসহ রাস্তা ঘাটে পিকেটিং, ধর্মঘট, গণশ্লোগানের কার্যক্রম শুরু হয়। ১৯৬৮ সালের জুলাই মাসেই পাবলিক সভা গুলো আরো ব্যাপক বিস্তৃত হয় এবং ১৯৬১ সনের উপনিবেশিক আদমশুমারী প্রতিবেদন পোড়ানো হয়। ১৯৬৯ সালের ১৫ অক্টোবর কাছাড়ের বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি শিক্ষার্থী ও যুবসমাজ রক্ত দিয়ে রক্তস্বার কর্মসূচি পালন করে। এর পরপরই ভাষা আন্দোলন আরো চূড়ান্ত গণ রূপ নেয় এবং ব্যাপক ধর্মঘট, ধরপাকড়, বন্ধ কর্মসূচি চলতে থাকে। ১৯৬৯ সালের ২২ অক্টোবর কাতিগড়া বন্ধ কর্মসূচি থেকে ৭ জন ভাষাবিদ্রোহীকে গ্রেফতার করা হয়। ৩০ অক্টোবর ২৬ জন, ৩১ অক্টোবর ৫ জন নারী আন্দোলনকারীসহ ৩ জন, ১ নভেম্বর ২৯ জন এবং ৩ নভেম্বর ১৯৬৯ গ্রেফতার হন ৩৮৫ জন। ১-৫ নভেম্বরের ভেতর তিন জেলার ডিসি অফিসে পিকেটিং করে চেয়ার দখল করে নেয়া হয়, ৪-৫ নভেম্বর ১৯৬৯ গ্রেফতার করা হয় ১১১ জনকে। রাষ্ট্রের ধরপাকড় ও নির্যাতনমূলক শাসনের বিরুদ্ধে ১১-১৩ নভেম্বর ১৯৬৯ তারিখে শিলচর শহরে বিশাল গণসমাবেশের আয়োজন হয়। শিলচর, নরসিংহপুর, হাইলাকান্দি ও পাথারকান্দিতে ১৪৪ ধারা ভেঙ্গে ফেলেন ভাষাবিপ্লবীরা, এই ঘটনায় সরকার ২৩৮ জনকে গ্রেফতার করে। ১৭ নভেম্বর ১৯৬৯ শিলচর বন্ধ থেকে ৩০০ জন সত্যাগ্রহীকে গ্রেফতার করা হয়। হাইলাকান্দির ওএসএ মাঠে বিশাল সমাবেশ ডাকা হয় একই সনের ২১ নভেম্বর, হাইলাকান্দি বন্ধ থেকে সবচেয়ে বড় ব্যাপক ধরপাকড় হয়, প্রায় ১৫০০ জন ভাষাবিদ্রোহীকে সরকার গনগ্রেফতার করে কারাগারে পাঠায়।

১৯৭০ সাল থেকে ভাষা আন্দোলন অন্য মোড় নেয়। ১৯৭০ সালের ১৯-৩০ এপ্রিলের ভেতর কাছাড়, ত্রিপুরা ও শিলং-এ ২৪ ঘন্টার গণঅনশণ করেন বিষ্ণুপ্রিয়া ভাষাবিদ্রোহীরা। ১৯৭২ সালের ১২ ডিসেম্বর কাছাড়ের সর্বত্র ৪৮ ঘন্টার গণঅনশণ, ১৯৭৪ সালের ৯ মার্চ কাছাড়ের সর্বত্র ৭২ ঘন্টার গণঅনশণ পালন করা হয়। ১৯৭৮ সালের ২ ডিসেম্বর করিমগঞ্জ ও কাছাড়ের সর্বত্র ‘সংখ্যালঘু বাঁচাও দিবস’ পালন করা হয়। একুশে ফেব্রুয়ারি যেদিন বাঙালির মাতৃভাষা দিবস, সেই তারিখে ১৯৭৯ সালে সমগ্র কাছাড়ে পালিত হয় অবস্থান ধর্মঘট।

আন্দোলনের মুখে ১৯৮৩ সালের ২৫ অক্টোবর আসামের রাজ্য সরকারের কেবিনেট মিটিং-এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে, কাছাড় ও করিমগঞ্জ জেলার স্কুল গুলোতে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষাকে প্রাথমিক পর্যায়ে অন্তর্ভূক্ত করার। কিন্তু অজানা কারণে ৮ ডিসেম্বর ১৯৮৩ তারিখে তা স্থগিত করা হয়। আবারো ‘বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ছাত্র ইউনিয়ন’ আন্দোলনের ডাক দেয়। ১৯৮৫ সালের ২ জুলাই বিপুল অংশগ্রহনে পালিত হয় দাবীদিবস। এরপর আন্দোলন চলতে থাকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত। ১৯৮৯ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি পালিত হয় ১২ ঘন্টা ‘রেল রোকো কর্মসূচি’। ১৯৮৯ সালের পয়লা ডিসেম্বর বিধান সভা চলাকালীন সময়ে দিসপুরে সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত রিলে অনশন পালিত হয়। ১৯৮৯ সালের ২৭ জুলাই তারিখে সরকার আবারো বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষা চালুর জন্য আরো একটি নোটিফিকেশন করে এবং ৬ আগস্ট ১৯৮৯ তারিখে তা আবার স্থগিত করে। লড়াকু ছাত্ররা সম্মিলিতভাবে ১৯৯২ সালের ২১ সেপ্টেম্বর ১৫ দিনের ভেতর বিষ্ণুপ্রিয়া ভাষা চালু করার দাবী জানিয়ে চরমপত্র দেয়। ঐদিন শিলচর গান্ধিবাগ ময়দানে প্রায় দশহাজার মানুষের এক বিশাল জমায়েতের মাধ্যমে এই চরমপত্র দেয়া হয়। কিন্তু ঐ চরমপত্রকে কোনো গুরুত্ব না দেয়ায় ভাষা-আন্দোলন আরো দ্রোহী হয়ে উঠে এবং ১৯৯২ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর গঠিত হয় ‘বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি গণসংগ্রাম পরিষদ’। ১৯৯২ থেকে ১৯৯৫ সময়কালের মধ্যে অসংখ্যবার ২৪ ঘন্টা, ৩৬ ঘন্টা, ৪৮ ঘন্টা এবং ১০১ ঘন্টার রাজপথ রেলপথ অবরোধ, গনঅনশন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হয়। এসব কর্মসূচির ফলে বরাক উপত্যকা কার্যত অচল হয়ে পড়ে।

অবশেষে আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ১৯৯৫ সালের ২৬ মে ত্রিপুরা রাজ্য সরকার ত্রিপুরা রাজ্যের প্রাথমিক স্কুল গুলোতে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষাকে অন্তর্ভূক্ত করে। কিন্তু আসামে এ দাবীটি তখনো সাফল্যের মুখ দেখেনি। আন্দেলন থেমে থাকেনা। সে আন্দোলনের সূত্র ধরে পাথারকান্দিতে, (যেখানে ১৯৬১ সালের সেন্সাসে ১ জন বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরিকে গননা করা হয়েছিল) ৫০১ ঘন্টার রেল অবরোধ কর্মসূচীর ঘোষনা দেয়া হয়। ১৯৯৬ সালের ১৬ মার্চ সেই কর্মসূচীতে পুলিশ গুলীতে ভাষাবিপ্লবী সুদেষ্ণা সিংহ শহীদ হলে গোটা আসাম বিক্ষোভে ভেঙে পড়ে। গনআন্দোলনের মুখে সরকার ন্যায্য দাবী মেনে নেয়। ২০০১ সালের ৭ ফেব্রুয়ারী বরাক উপত্যকার ১৫২টি স্কুলে তৃতীয় শ্রেণী থেকে চালু হয় বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষায় পাঠ্যবই 'কনাকপাঠ'।



কিন্তু থেমে থাকেনি রাস্ট্রের প্রতারনা ও দমননীতি। স্কুলগুলোতে ছাত্রছাত্রীদের জন্য শিক্ষক নিযুক্তি নেই, পাঠ্যবই নেই, নেই সরকারের ঐকান্তিকতা। প্রশাসনিক জটিলতার নামে চলে নানান টালবাহানা। কিন্তু মাতৃভাষার সম্মান রক্ষা করতে শিক্ষকরা মাসের পর মাস পড়িয়ে যান বিনা বেতনে। এর মধ্যে মণিপুরি-অমণিপুরি বিতর্ক সৃস্টি করে মৈতৈ ও বিষ্ণুপ্রিয়া সম্প্রদায়কে মুখোমুখি করা হয় ভ্রাতৃঘাতি যুদ্ধে। দীর্ঘদিন আইনি লড়াইয়ের পরে সব বিতর্কের অবসান ঘটায় গৌহাটি হাইকোর্ট এবং ভারতের সুপ্রীম কোর্ট। ২০০৬ সালের ৮ই মার্চ সুপ্রিমকোর্টের এক যুগান্তকারী রায়ের মাধ্যমে ‘বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি’ নামের জনমদুঃখীনি ভাষাটি রাষ্ট্রীয় অনুমোদন পায়।

তথ্য সূত্র:
০১. উইকিপিডিয়া
০২. ফাগু (বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষার পত্রিকা), বর্ষ ২, সংখ্যা ১০, শিলচর ১৯৬২
০৩. মণিপুরি জাতিসত্তা বিতর্ক: একটি নিরপেক্ষ পাঠ/ অসীমকুমার সিংহ, সিলেট, ২০০২
০৪. সামহোয়্যারইন ব্লগ
০৫. মনিপুরি কয়েকটি ওয়েবসাইট


Comments (0)        Print        Tell friend        Top


Other Articles:
স্যামসন এইচ চৌধুরী
হাবিবুর রহমান
অধ্যক্ষ মোহাম্মদ হোসেন খান আর নেই
Happy Birthday to Reza sarwar
মার্কেন্টাইল ব্যাংকের গুণীজন সংবর্ধনা
বিশ্বনাথে গুনীজন সংবর্ধনা গুণীজনেরা সমগ্র জাতির সম্পদ
বীরগঞ্জে জাতীয় মানবাধিকার সোসাইটির উদ্যোগে গুনীজন সংবর্ধনা
কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও গুনীজন সম্মাননা
জেদ্দায় কনসাল জেনারেলকে বিদায় সংবর্ধনা ও গুনীজন সম্মাননা
একজন গুনী ব্যক্তিকে গুনীজন সম্মাননা



 
  ::| Events
May 2019  
Su Mo Tu We Th Fr Sa
      1 2 3 4
5 6 7 8 9 10 11
12 13 14 15 16 17 18
19 20 21 22 23 24 25
26 27 28 29 30 31  
 
::| Hot News
আবদুুল হাই মাশরেকী ছিলেন মূলসংস্কৃতির শিকড়ের আধুনিক কবি
লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে শিল্পকলায় দুদিনব্যা
লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭ তম জন্মজয়ন্তী আগামী ১ এপ্রিল ২০১৬
জেদ্দায় কনসাল জেনারেলকে বিদায় সংবর্ধনা ও গুনীজন সম্মাননা

Online News Powered by: WebSoft
[Top Page]