Sunday, 11.18.2018, 02:59pm (GMT+6)
  Home
  FAQ
  RSS
  Links
  Site Map
  Contact
 
আবদুুল হাই মাশরেকী ছিলেন মূলসংস্কৃতির শিকড়ের আধুনিক কবি ; লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে শিল্পকলায় দুদিনব্যা ; লোককবি আবদুুল হাই মাশরেকীর ৯৭ তম জন্মজয়ন্তী আগামী ১ এপ্রিল ২০১৬ ; আল মুজাহিদী ; ভাষাসৈনিক আবদুল মতিন
::| Keyword:       [Advance Search]
 
All News  
  গুণীজন সংবাদ
  বিপ্লবী
  ভাষা সৈনিক
  মুক্তিযোদ্ধা
  রাজনীতিবিদ
  কবি
  নাট্যকার
  লেখক
  ব্যাংকার
  ডাক্তার
  সংসদ সদস্য
  শিক্ষাবিদ
  আইনজীবি
  অর্থনীতিবিদ
  খেলোয়াড়
  গবেষক
  গণমাধ্যম
  সংগঠক
  অভিনেতা
  সঙ্গীত
  চিত্রশিল্পি
  কার্টুনিস্ট
  সাহিত্যকুঞ্জ
  ফটো গ্যাল্যারি
  কবিয়াল
  গুণীজন বচন
  তথ্য কর্ণার
  গুণীজন ফিড
  ফিউচার লিডার্স
  ::| Newsletter
Your Name:
Your Email:
 
 
 
অভিনেতা
 
সিরাজুল হক মন্টু




সিরাজুল হক মন্টু মূলত আশির দশকে ফজলে লোহানীর ‘যদি কিছু মনে না করেন’ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে ‘আচ্ছা বলুন তো’ সংলাপটির মাধ্যমে দর্শকের কাছে ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা পান। গত বছরের ২৯ জুন হানিফ সংকেতের ‘ইত্যাদি’ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে দীর্ঘ দিন পর সিরাজুল হক মন্টুকে দর্শকের সামনে উপস্থাপন করা হয়। মিডিয়া তথা দেশের অনেক দর্শকই মন্টু সম্পর্কে কোনো তথ্যই জানতেন না। কিন্তু ইত্যাদিতে প্রচারের কারণেই আবারো সবাই মন্টু সম্পর্কে সে সময় নতুন করে জানেন। কিংবদন্তি এই প্রবীণ কৌতুকাভিনেতা ছিলেন ময়মনসিংহ তথা সারা বাংলাদেশের গর্ব। মন্টুর মৃত্যুর আগে ময়মনসিংহেরই একজন চিত্রশিল্পী মোহাম্মদ ছাইদুল ইসলাম তাকে নিয়ে একটি তথ্যচিত্র নির্মাণ করেন। এই তথ্যচিত্রে সিরাজুল ইসলাম মন্টু নিজে তার জন্মসহ কর্মময় জীবন সম্পর্কে নানা কথা বলেছেন। তথ্যচিত্রটি প্রযোজনা করছে নোভিস ফাউন্ডেশন।

জন্ম এবং পরিবার
সিরাজুল হক মন্টু ময়মনসিংহে জন্মগ্রহন করেন। তার বড় মেয়ে ফৌজিয়া বেগম মিতা, আরেক মেয়ে রিতা। ছোট ছেলে রিন্টু।

অভিনীত ছবি
তিনি বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনের নিয়মিত অভিনয়শিল্পী ছিলেন। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবিগুলো হচ্ছে ছুটির ঘণ্টা, অশিতি, সুজন সখী, দর্পচূর্ণ, মাটির ঘর ইত্যাদি। গতকাল রোববার বাদ জোহর নামাজে জানাজার পর সিরাজুল হক মন্টুর লাশ ময়মনসিংহের গুলকীবাড়ি কবরস্থানে পারিবারিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দাফন করা হয়।

মৃত্যু
২০১৩, ৮ জুন শনিবার রাত ৯টায় তিনি ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি ব্রেন স্ট্রোক করে মারা যান। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর।

সিরাজুল হক মন্টু মূলত আশির দশকে ফজলে লোহানীর ‘যদি কিছু মনে না করেন’ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে ‘আচ্ছা বলুন তো’ সংলাপটির মাধ্যমে দর্শকের কাছে ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা পান। গত বছরের ২৯ জুন হানিফ সংকেতের ‘ইত্যাদি’ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে দীর্ঘ দিন পর সিরাজুল হক মন্টুকে দর্শকের সামনে উপস্থাপন করা হয়। মিডিয়া তথা দেশের অনেক দর্শকই মন্টু সম্পর্কে কোনো তথ্যই জানতেন না। কিন্তু ইত্যাদিতে প্রচারের কারণেই আবারো সবাই মন্টু সম্পর্কে সে সময় নতুন করে জানেন। কিংবদন্তি এই প্রবীণ কৌতুকাভিনেতা ছিলেন ময়মনসিংহ তথা সারা বাংলাদেশের গর্ব। মন্টুর মৃত্যুর আগে ময়মনসিংহেরই একজন চিত্রশিল্পী মোহাম্মদ ছাইদুল ইসলাম তাকে নিয়ে একটি তথ্যচিত্র নির্মাণ করেন। এই তথ্যচিত্রে সিরাজুল ইসলাম মন্টু নিজে তার জন্মসহ কর্মময় জীবন সম্পর্কে নানা কথা বলেছেন। তথ্যচিত্রটি প্রযোজনা করছে নোভিস ফাউন্ডেশন।

জন্ম এবং পরিবার
সিরাজুল হক মন্টু ময়মনসিংহে জন্মগ্রহন করেন। তার বড় মেয়ে ফৌজিয়া বেগম মিতা, আরেক মেয়ে রিতা। ছোট ছেলে রিন্টু।

অভিনীত ছবি
তিনি বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনের নিয়মিত অভিনয়শিল্পী ছিলেন। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবিগুলো হচ্ছে ছুটির ঘণ্টা, অশিতি, সুজন সখী, দর্পচূর্ণ, মাটির ঘর ইত্যাদি। গতকাল রোববার বাদ জোহর নামাজে জানাজার পর সিরাজুল হক মন্টুর লাশ ময়মনসিংহের গুলকীবাড়ি কবরস্থানে পারিবারিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দাফন করা হয়।

মৃত্যু
২০১৩, ৮ জুন শনিবার রাত ৯টায় তিনি ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি ব্রেন স্ট্রোক করে মারা যান। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর।

- See more at: http://www.priyo.com/people/20666#sthash.ey8nyKVi.dpuf

সিরাজুল হক মন্টু মূলত আশির দশকে ফজলে লোহানীর ‘যদি কিছু মনে না করেন’ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে ‘আচ্ছা বলুন তো’ সংলাপটির মাধ্যমে দর্শকের কাছে ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা পান। গত বছরের ২৯ জুন হানিফ সংকেতের ‘ইত্যাদি’ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে দীর্ঘ দিন পর সিরাজুল হক মন্টুকে দর্শকের সামনে উপস্থাপন করা হয়। মিডিয়া তথা দেশের অনেক দর্শকই মন্টু সম্পর্কে কোনো তথ্যই জানতেন না। কিন্তু ইত্যাদিতে প্রচারের কারণেই আবারো সবাই মন্টু সম্পর্কে সে সময় নতুন করে জানেন। কিংবদন্তি এই প্রবীণ কৌতুকাভিনেতা ছিলেন ময়মনসিংহ তথা সারা বাংলাদেশের গর্ব। মন্টুর মৃত্যুর আগে ময়মনসিংহেরই একজন চিত্রশিল্পী মোহাম্মদ ছাইদুল ইসলাম তাকে নিয়ে একটি তথ্যচিত্র নির্মাণ করেন। এই তথ্যচিত্রে সিরাজুল ইসলাম মন্টু নিজে তার জন্মসহ কর্মময় জীবন সম্পর্কে নানা কথা বলেছেন। তথ্যচিত্রটি প্রযোজনা করছে নোভিস ফাউন্ডেশন।

জন্ম এবং পরিবার
সিরাজুল হক মন্টু ময়মনসিংহে জন্মগ্রহন করেন। তার বড় মেয়ে ফৌজিয়া বেগম মিতা, আরেক মেয়ে রিতা। ছোট ছেলে রিন্টু।

অভিনীত ছবি
তিনি বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনের নিয়মিত অভিনয়শিল্পী ছিলেন। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবিগুলো হচ্ছে ছুটির ঘণ্টা, অশিতি, সুজন সখী, দর্পচূর্ণ, মাটির ঘর ইত্যাদি। গতকাল রোববার বাদ জোহর নামাজে জানাজার পর সিরাজুল হক মন্টুর লাশ ময়মনসিংহের গুলকীবাড়ি কবরস্থানে পারিবারিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দাফন করা হয়।

মৃত্যু
২০১৩, ৮ জুন শনিবার রাত ৯টায় তিনি ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি ব্রেন স্ট্রোক করে মারা যান। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর।

- See more at: http://www.priyo.com/people/20666#sthash.ey8nyKVi.dpuf

Comments (0)        Print        Tell friend        Top


Other Articles:
আনোয়ার হোসেন
লিয়াকত আলী লাকী
বুলবুল আহমেদের সংক্ষিপ্ত জীবনী



 
  ::| Events
November 2018  
Su Mo Tu We Th Fr Sa
        1 2 3
4 5 6 7 8 9 10
11 12 13 14 15 16 17
18 19 20 21 22 23 24
25 26 27 28 29 30  
 
::| Hot News
বুলবুল আহমেদের সংক্ষিপ্ত জীবনী

Online News Powered by: WebSoft
[Top Page]